‘একমুঠো মেঘ’ একটি চমৎকার কাব্যগ্রন্থ

সুসেন কান্তি দাশ

শুক্রবার , ৩১ মে, ২০১৯ at ৭:১৩ পূর্বাহ্ণ
35

বর্তমান সময়ে আধুনিক কবিতা চর্চায় যারা অগ্রগামী তাদের একজন রুমি চৌধুরী। ফেব্রুয়ারী ২০১৯ এ প্রকাশিত লেখকের ‘একমুঠো মেঘ’ কাব্যগ্রন্থটি তার অভিনব বহিঃপ্রকাশ। এই গ্রন্থের একচল্লিশটি কবিতায় রয়েছে ছন্দ, তাল, রস ও কাব্যিকতার শৈল্পিক নন্দন। প্রতিটি কবিতার গভীরে লুকিয়ে আছে একটি মানুষের অবর্ণনীয় কান্না হাসির জীবনগাথা। তাতে মিশে আছে, প্রেম-বিরহ, অভিমান ও অপ্রাপ্তির যন্ত্রণা।
“যদি মন চায়, তবে চলে এসো”- এইটি গ্রন্থের প্রথম কবিতা। কবিতায় কবি লিখেছেন- “হে আমার অসহ্য সুন্দর/যদি মন চায়/তবে চলে এসো আমার অপরূপ স্বপ্নীল ভুবনে………। একটুখানি স্নেহ-মায়া, একটুখানি ভালোবাসার ছোঁয়া পেতে চাওয়া মানব মনের এই এক চিত্তকর্ষক কবিতায় কবি অতি সাবলিল ভাষার ব্যবহার করেছেন। ‘আমার আমি’- কবিতায় কবি আত্মনির্ভরশীল জীবনের জয়গান গেয়েছেন, মানুষের দুটি হাত, দুটি পা, হৃদপিন্ড, এসবই একমাত্র মানুষের ভরসার বিষয়, তাইতো কবি লিখেছেন- “এই আমি টাই কেবল আমার নিজের/আর কেউ নয়, কেউই নয়।” মানুষ যদি মানুষের মনে আজীবন বেঁচে থাকতে পারে তবেই জীবনের সার্থকতা। তবু মনে রেখো কবিতায় কবি এই সত্যটাকে প্রকাশ করেছেন- “তবু মনে রেখো, মনে রেখো আমায়/মনে রেখো আমার কবিতা, আমার গানের সুর।” “স্বেচ্ছা নির্বাসন”- কবিতায় কবি লিখেছেন- “তুমি অনায়াসে চলে যেতে পারো/যতটা দূরত্বে গেলে আমি পুরোপুরি নিশ্চিহ্ন হবো…” আবার লিখেছেন “ সাতচিতায় আগুন আর কতখানি জ্বলে?/ সাতজনম কাঁদার জন্যে এক প্রেমই চলে।” কবির বিরহী মনের কষ্ট কথা এতে ফুটে উঠেছে। “বনলতা নয়, প্রীতলতা হতে চাই”- কবিতায় কবি বিশ্বপ্রেমিক মনের উপাস্য প্রীতিলতা, বনলতা সেন, বেগম রোকেয়া, জীবনানন্দের সুরঞ্জনায় উদ্ধৃতি টেনেছেন। তিনি বোঝাতে চেয়েছেন শুধু প্রেম নয়, প্রতিবাদের দাবানলে উপচে দিতে পারে একটি সত্যিকারের প্রেম।
কবি রুমি চৌধুরীর মনের গভীরে বাস করা একজন অদৃশ্য মানুষ; সারাক্ষণ মনের গভীরে দাপাদাপি করে, লুকোচুরি করে, কখনোবা অভিমানে অশ্রু ঝরায়। সে কখনো কাছে কখনোবা দূরে সরে যায়। সে যেনো ধরা দিতে এসে ধারায় মিশে যায় “প্রেমে- অপ্রেমে”- কবিতায় কবি প্রকাশ করেছে- “এই বুঝি আছ- এই বুঝি নেই, খানিকটা প্রেমে, খানিকটা অপ্রেমে/সময় কিন্তু ঠিকই যাচ্ছে বয়ে।” অদৃশ্য তুমি কবিতায় কবি লিখেছেন- “দৃশ্যমান তুমিতো সেই কবেই অদৃশ্য হয়েছো/ আমার বৈসাদৃশ্যের জগত হতে …..।” ‘তুমিই প্রেরণা কবিতায়’ কবি লিখেছেন, “তোমার সাথে কথা বলাগুলোই/ আমার এক একটা কবিতা হয়ে ওঠে/তোমার সাথে কাটানো সময়গুলোই/হেমন্তি গানের কলি হয়ে ওঠে।” কবি মন কখন যে কী চায় তা কেবল কবিই জানেন। এতো আনন্দ, এতো স্বপ্নের গভীরে কবি “মৃত্যুবন্দনা” কবিতায় লিখেছেন “তাইতো দুচোখ জুয়ে এখন স্বপ্নের বদলে/আমার আনন্দময় শবযাত্রায় প্রতিচ্ছবিই শুধু আঁকি…।” এযেনো যখন ভাঙবে রসের মেলা তখন সেই পাখিটা উড়াল দিবে একেলা-একেলা এর মতোই মনের আবেগে জড়ানো একরাশ ফুলঝুরি।
কবি রুমি চৌধুরী ‘একমুঠো মেঘ’ একরাশ ভালোবাসা ও ভালোলাগা অভিব্যক্তি। এতে ঠাঁই পাওয়া প্রতিটি কবিতায় সত্য সুন্দর জীবনের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। যা না পড়লে অতৃপ্তিই থেকে যাবে। গ্রন্থটি প্রকাশ করেছে শৈলী প্রকাশন। প্রচ্ছদ এঁকেছে নান্টু বিকাশ বড়ুয়া। কবির কাব্যকথা ছড়িয়ে পড়ুক সবার মাঝে, স্বপ্নের সমাবেশ হয়ে।

x