এই সুইমিংপুল কখনোই বন্ধ হবে না

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ
111

সারা দেশে অনেকগুলো সুইমিং পুল তৈরি করে দিয়েছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ। কিন্তু বেশিরভাগ পুলের অবস্থা একেবারেই নাজুক। কোনটাতে পানি নেই, কোনটাতে ময়লায় ভরা। ব্যবহারের মত অবস্থায় নেই। আমরা সরকারের টাকায়, জনগণের টাকায় সুইমিং পুল তৈরি করে দিই আর তারা সেটা নষ্ট করে ফেলে। কথাগুলো বলেছেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। চট্টগ্রামে প্রায় সাড়ে ১১ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সুইমিং পুলটির যেন সে অবস্থা না হয়। জবাবে সিজেকেএস সাধারণ সম্পাদক এবং সিটি মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দিন বলেন সারা দেশের সব সুইমিং পুল বন্ধ হয়ে গেলেও চট্টগ্রামের এই সুইমিংপুল বন্ধ হবে না। আর এই সুইমিংপুল পরিচালনার জন্য জাতীয় ক্রীড়া পরিষদকে কোন খরচও দিতে হবে না। সব আমরা করব। তবে আমাকে তিনটি কাজ করে দেন। আমি আগামী ৫ বছরে একাধিক জাতীয় মানের ক্রীড়াবিদ উপহার দেব। মেয়র যা চাইলেন তা হচ্ছে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের ফ্লাড লাইটগুলো ঠিক করে দেওয়া । জিমনেসিয়ামটিকে উডেন ফ্লোর করে দেওয়া এবং সুইমিং পুলকে কাভার্ড করে দেওয়া। তবে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জবাবে বলেন ফ্লাড লাইট এবং জিমনেসিয়ামের ব্যাপারে সর্বাত্মক চেষ্টা করবেন তিনি। তবে সুইমিং পুলটি খোলা রাখলেই ভাল।
গত মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু হয়েছে বহু প্রতীক্ষিত সুইমিং পুলের। নানা ঘটনা- অঘটনের পর শেষ পর্যন্ত মাথা উঁচু করে দাঁড়ানো এই সুইমিং পুল এবার আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করল। এরই মধ্যে প্রায় এক হাজারের মত আবেদন পত্র জমা পড়েছে সুইমিং পুল ব্যবহারের জন্য সিটি মেয়র বলেন চট্টগ্রামের এই সুইমিং পুল এখানকার মানুষের দীর্ঘ দিনের প্রত্যাশার ফসল। এই সুইমিং পুলটি সারা দেশের জন্য একটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। তিনি বলেন আমরা প্রায় ৩৬টির মত ইভেন্ট আয়োজন করি। যা অন্য কোন জেলা করেনা। সেখানে আবার একাধিক ইভেন্টে একাধিক স্তরের লিগ কিংবা টুর্নামেন্ট করে থাকি। সেটাও সারা দেশে একমাত্র চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা করে থাকে। কাজেই আমাদের সামান্য সুযোগ সুবিধা বাড়িয়ে দিলে আগামী ৫ বছরে একাধিক জাতয় ক্রীড়াবিদ সৃষ্টি করে দেব।
সুইমিং পুল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেন চট্টগ্রামের এই সুইমিং পুলটাকে সারা দেশের জন্য একটি দৃষ্টান্ত হিসেবে দেখতে চান তিনি। তিনি বলেন আমরা সুযোগ সৃষ্টি করে দেব। স্থাপনা তৈরি করে দেব। কিন্তু সে সব স্থাপনা আপনাদের রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে। কারন সম্পদ সঠিকতভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করতে না পারলে তার খেসারতটা আপনাদেরকেই দিতে হবে। তিনি বলেন চট্টগ্রামের ক্রীড়াঙ্গনের উন্নতির জন্য সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হবে।
অনুষ্ঠানের সভাপতি জেরা প্রশাসক এবং সিজেকেএস সভাপতি ইলিয়াস হোসেন বলেন সুইমিং পুল, সার্কিট হাউস, রেডিসন ব্লু, স্টেডিয়ামের চার পাশের সুন্দর সব স্থাপনা সব মিলিয়ে এই এলাকাটি চট্টগ্রামের সবচাইতে দৃষ্টি নন্দন এক এলাকায় পরিণত হয়েছে। তবে আউটার স্টেডিয়ামের বাকি অংশটা সংস্কার করা প্রয়োজন। যদিও আউটার স্টেডিয়ামের বাকি অংশের চারপাশের সৌন্দর্য বর্ধনের জণ্য এরই মধ্যে একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। তবে বাকি মাঠটা সংস্কার করা প্রয়োজন। তাহলে এই এলাকাটি হবে সবচাইতে সুন্দর একটি এলাকা। পরে ক্রীড়া প্রতি মন্ত্রী, সিটি মেয়র এবং অতিথি বৃন্দ বেলুন উড়িয়ে বহু প্রতিক্ষীত সুইমিং পুলের উদ্বোধন করেন। এর আগে একটি নাম ফলক উম্মোচন করা হয়। এছাড়া মন্ত্রী এবং অতিথি বৃন্দ সুইমিং পুল এলাকা ঘুরে দেখেন। সিজেকেএস অতিরিক্ত সাধারন সম্পাদক সৈয়দ শাহাবুদ্দিন শামীমের উপাস্থাপনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ের সচিব ড. মোঃ জাফর উদ্দিন, যুগ্ম সচিব শাহ আলম। এছাড়া বক্তব্য রাখেন সিজেকেএস সহ সভাপতি মোজাম্মেল হক, সিজেকেএস সাঁতার কমিটির চেয়ারম্যান এহসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল । অনুষ্ঠানে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী, সিটি মেয়র এবং জেলা প্রশাসকের হাতে সিজেকেএস এবং সুইমিং ফেডারেশনের পক্ষ থেকে ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে সিজেকেএস নির্বাহি কমিটির সদস্য বৃন্দ, কাউন্সিলরবৃন্দ সহ সাঁতার শিখতে আগ্রহী ক্ষুদে সাঁতারুরা উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনের পরপরই সদ্য নিয়োগ প্রাপ্ত প্রশিক্ষকরা বাচ্চাদের নিয়ে নেমে পড়ে সুইমিং পুলে।

x