এই ঈদের ফ্যাশন ট্রেন্ড

রুহি আফরোজ

রবিবার , ৩ জুন, ২০১৮ at ১০:০১ পূর্বাহ্ণ
64

দরোজায় কড়া নাড়ছে ঈদ উল ফিতর। আর ঈদ মানেই তো নতুন পোশাক। প্রতি ঈদে এই ট্রেন্ডের কথা তো জানা আছে সবারই। ঈদের পোশাক কিনতে এরই মাঝে বিপণি বিতান গুলোতে নেমেছে মানুষের ঢল। বিক্রেতারাও ব্যস্ত সময় পার করছেন ক্রেতার চাহিদা মেটাতে। আপনি যদি এখনও ঈদের পোশাক না কিনে থাকেন তবে জেনে নিতে পারেন এবার ঈদে ঠিক কী ধরনের বা কী ডিজাইনের পোশাক চলছে। হালের ট্রেন্ডে জায়গা করে নিয়েছে কী ধরনের পোশাক। কিছুদিন আগেও ঈদ ফ্যাশন ডিজাইনে ভিন দেশি বিশেষ করে ভারতপাকিস্তানের প্রভাব পড়লেও, বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের ফ্যাশন হাউসগুলোই তরুণতরুণীদের মাঝে প্রভাব বিস্তার করছে।

গরম আর বর্ষার ফ্যাশন ট্রেন্ড

এবারের ঈদ এসেছে এমন এক সময়ে যখনতখন নামে বৃষ্টির ঘনঘটা আর তীব্র গরম। তাই গরম এবং বর্ষা ঋতুর কথা মাথায় রেখেই ঈদের পোশাকের ডিজাইন করেছেন ফ্যাশন ডিজাইনাররা। বেছে নিয়েছেন একই সঙ্গে জমকালো আর স্বস্তিদায়ক কাপড়। গরমে আরাম আর বর্ষার স্যাতস্যাতে আবহাওয়ার বিষয়টি মাথায় রেখেই এবার ঈদের পোশাকগুলোর ডিজাইন করা হয়েছে। উজ্জ্বল তবে তা অতিরঞ্জিত নয়, এমন সব কালার বেছে নেয়া হয়েছে। রাতে লাল, কালো, নীল, মেজেন্টা, কমলা এবং দিনে গোলাপি, বেগুনি, আকাশি, অ্যাশ রঙের প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। কাপড় হিসেবে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে শিফন, মসলিন, জর্জেট কাপড়কে। আর তাতে জমকালো ভাব ফুটিয়ে তুলতে করা হয়েছে জারদৌসির কাজ।

মেয়েদের পোশাক

ঈদে মেয়েদের পোশাকে এমব্রয়ডারির প্রাধান্য চোখে পড়ছে। প্রচুর এমব্রয়ডারির নকশা দেখা যাবে ঈদ কালেকশনে। অন্য মাধ্যমেও বিভিন্ন সালোয়ার কামিজ করা হয়েছে। সালোয়ারের ক্ষেত্রে মূলত নরমাল ডিজাইনই প্রাধান্য পেয়েছে। সঙ্গে থাকছে ম্যাচিং ওড়না। উৎসবের আমেজ আনতে ওড়নাগুলোকেও বিশেষ যত্ন নিয়ে করা হয়েছে। সালোয়ার কামিজ ছাড়াও ঈদ কালেকশনে থাকছে বিভিন্ন ডিজাইনের ফতুয়া, টপস, শাড়ি ইত্যাদি। মেয়েদের পোশাকে বৈচিত্র্য এসেছে কাটিংয়ে। লং কাটের একটি কামিজ যেকোনো নারীকে সহজেই করে তোলে অনন্য। কামিজের ঝুল কখনো পেছনে বেশি থাকছে আর সামনে কমে যাচ্ছে। কখনো সামনেপেছনে ঝুল ঠিক আছে কিন্তু সাইড থেকে নেমে গেছে। এভাবে নানা ডিজাইনে বৈচিত্র্য আনা হয়েছে ঈদ কালেকশনে।

গরম আবহাওয়ায় সবাই চায় পোশাক পরে যেন স্বস্তি পাওয়া যায়। আর তাই এবার সবার পছন্দের শীর্ষে অবস্থান করছে পাকিস্তানি লন। বাহারি রঙ আর ডিজাইনের এসব লনের চাহিদা রয়েছে প্রায় সকল বয়সী নারীর মাঝে। সুতি ওড়না ও হাতার লনও যেমন রয়েছে তেমনি রয়েছে শিফন জর্জেটের ওড়না ও হাতার লন। আগেকার মতো বড়সড় ওড়না পরার চল নেই আর। সেই স্থান জায়গা করে নিয়েছে কেপ। কেপ হলো কামিজের ওপর এমন একটা কাপড় যেটি গলার চারপাশে গোল হয়ে অবিকল ওড়নার মতোই দেখায়।

তরুণীদের মাঝে এবার গাউন কেনার আগ্রহ বেশ দেখা যাচ্ছে। পশ্চিমা দেশের এই পোশাকটিকে দেশীয় চাহিদায় ক্রেতাদের কাছে নিয়ে আসার জন্য ইতোমধ্যেই দেশীয় বুটিক হাউজগুলো পার করছে ব্যস্ত সময়। বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজগুলো নিয়ে এসেছে সুতির গাউন থেকে শুরু করে জমকালো কাজ করা গাউন। কাটাছাটে আছে ভিন্নতা। ক্রেতাদের স্বাস্থ্য, উচ্চতা সবদিক খেয়াল রেখেই বিক্রেতারা গাউনের যোগান রেখেছেন। আর তাই তো তরুণীরা লুফে নিচ্ছে নিজের পছন্দমত গাউন।

ঈদের বাজারে এবারও সালোয়ার হিসেবে নারীদের পছন্দের তালিকায় রয়েছে “পেলাজো” বা চওড়া মুহুরির সেলোয়ার। চুড়িদারের চাহিদা ইদানিং তুলনামুলক কম। ব্লকের সেলোয়ার কামিজগুলোও এবার বেশ চলছে। ডিজাইনেও এসেছে নতুনত্ব। ঈদ সামনে রেখে শপিং মল গুলো ঘুরে দেখা যায়, এবার নারীদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে শিফন জর্জেট, কাতান আর জামদানীর শাড়ি। ব্লাউজে চলছে পেছন দিয়ে খোলামেলা কাট। শাড়িতে জরি, পুতি, ভারী স্টোনের কাজও এবার বেশ চোখে পড়ছে।

x