উন্নয়নশীল দেশের যোগ্যতা অর্জন এ সফলতা বাংলাদেশের জনগণের

সোমবার , ১৯ মার্চ, ২০১৮ at ৫:২১ পূর্বাহ্ণ
128

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উঠতে যে শর্ত দরকার, তা পূরণ করায় আবেদন করার যোগ্য হিসেবে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছে জাতিসংঘ। এর মধ্য দিয়ে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশের স্বীকৃতি আদায়ের পথে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হল। আগামী ২০২৪ সালে বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক উত্তরণ ঘটবে। জাতিসংঘের ওয়েবসাইটে বাংলাদেশের প্রোফাইলে এখন বলা আছে, উন্নয়নশীল দেশের কাতারে ওঠার যোগ্যতা এই মার্চেই অর্জন করেছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের এই অর্জন শুধু সরকারের জন্য আনন্দের নয়, সকল নাগরিকের জন্য গর্বের বিষয়। নোবেল বিজয়ী বাঙালি অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন একাধিকবার লিখেছেন, সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের অগ্রগতি ভারতের চেয়েও ভালো। ওয়াল স্ট্রিট জার্নালএর ভারতীয় বংশোদ্ভূত সাংবাদিক সদানন্দ ধুম গত দুই বছরে তাঁর পত্রিকায় একাধিকবার লিখেছেন, বাংলাদেশ এখন আর তলাবিহীন ঝুড়ি নয়, বরং অনেক দেশের জন্য অনুকরণীয় একটি দেশ। স্বাধীনতার পর ধ্বংসস্তূপ থেকেই বাংলাদেশের পথচলা শুরু হয়েছিল। তখন কোনো অবকাঠামো ছিল না, প্রতিষ্ঠানও ছিল না। বলা হয়েছে, বাংলাদেশ একটি উন্নয়নের পরীক্ষাগার। এরকম পরিস্থিতি থেকে বাংলাদেশের উত্তরণ বিস্ময়কর। গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে জানা যায়, ১৯৭৫ সাল থেকে জাতিসংঘের স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশ। এলডিসি থেকে উত্তরণের জন্য আয়, মানব সম্পদ সূচক ও অর্থনৈতিক ঝুঁকি সূচক (ইভিআই) এই তিন শর্ত পূরণ করতে হয়, যা বাংলাদেশের ক্ষেত্রে পূরণ হয়েছে। মাথাপিছু জাতীয় আয় ১ হাজার ২৫ ডলারের নিচে থাকলে সে দেশ এলডিসিভুক্ত হয়, এই আয় ১২৩০ ডলার অতিক্রম করলে ধাপ উন্নয়নের যোগ্যতা অর্জন হয়। বাংলাদেশের এখন ১ হাজার ২৭৪ ডলার। মানব সম্পদ সূচকে বাংলাদেশের পয়েন্ট এখন ৭২। এক্ষেত্রে ৬২ পর্যন্ত দেশগুলো এলডিসিভুক্ত, ৬৪ ছাড়ালে উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার যোগ্যতা অর্জিত হয়। অর্থনৈতিক ঝুঁকির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের পয়েন্ট এখন ২৫ দশমিক ২। এই পয়েন্ট ৩৬ এর বেশি হলে এলডিসিভুক্ত হয়, ৩২ এ আনার পর উন্নয়নশীল দেশে যোগ্যতা অর্জন হয়।

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় নাম লেখানোর বিষয়টি বাংলাদেশের জন্য একটি মাইলফলক। স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে বাংলাদেশ সবগুলো ধাপ পার করতে পেরেছে। তার মানেই হচ্ছে যে প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি আমরা, আমাদের যে মাথাপিছু আয় বাড়ছে সেটাকে আমরা অনেক বেশিভাবে মানব উন্নয়নের খাতে প্রবাহিত করতে পেরেছি। এমনিতেই বাংলাদেশের উন্নয়নকে বিস্ময় বা ধাঁধা বলা হয়। বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় প্রকৃত অর্থে স্বাধীনতার পর থেকে প্রায় তিন গুণ বেড়েছে, গড় আয়ুু ৫০ থেকে ৬৫ এর উপরে এসেছে। গণসাক্ষরতার হার দ্বিগুণ হয়েছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ৩ শতাংশ থেকে কমে দেড় শতাংশে নেমে এসেছে। ১৯৭৩৭৫ সময়েও বাংলাদেশে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) গড় প্রবৃদ্ধি ছিল ২ দশমিক ৪ শতাংশ। এমনকি ১৯৯০ সময় পর্যন্তও গড় প্রবৃদ্ধি ছিল মাত্র ৩ দশমিক ৭ শতাংশ। সেই প্রবৃদ্ধি এখন ৬ শতাংশের বেশি। তবে সামাজিক উন্নয়নের সূচকগুলোতেই সবচেয়ে বিস্ময়কর অগ্রগতি হয়েছে। যেমন, শিশু মৃত্যুর হার কমেছে, মেয়েদের বিদ্যালয়ে যাওয়ার হার অনেক বেড়েছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এগুলো সম্ভব হয়েছে কারণ, বাংলাদেশের মানুষ উন্নয়ন সচেতন এবং সুযোগ পেলে সঙ্গতির মধ্যে নতুন যেকোনো উন্নয়ন ধারণা পেলেই তারা গ্রহণ করে। যেমন, শিশু মৃত্যুর হার কমাতে সবচেয়ে বেশি কাজ করেছে খাওয়ার স্যালাইন।

অর্থনীতিবিদরা বলেন, বাংলাদেশ নিয়ে সবার আশাবাদের বড় কারণ এর জনসংখ্যা। জনসংখ্যা এক সময় বোঝা ছিল, সেটা এখন সম্পদে পরিণত হচ্ছে। আরো আনন্দের বিষয় যে, জনসংখ্যায় কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। এখানে জনসংখ্যা যে হারে বাড়ছে, তার তুলনায় আগামী দুই থেকে তিন দশকে কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যাও বেশি থাকবে। এখানে তরুণদের সংখ্যা বয়স্কদের তুলনায় অনেক দিন বেশি থাকবে। এটি একটি সুযোগ, যা একবারই আসে। এ সুযোগ কাজে লাগিয়েছে চীন ও ভারত। চীনের কর্মক্ষম মানুষ উৎপাদন খাতে বেশি কাজে লেগেছে, আর ভারতে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে। কিন্তু এ সুযোগ কাজে লাগাতে হলে জনশক্তিকে আরও দক্ষ করতে হবে।

অর্থনৈতিক উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে সুশাসনের চাহিদাও তৈরি হয়। সুশাসনের চাহিদা তৈরি করে যদি অগ্রসর হওয়া যায়, তাহলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক শক্তি আরো মজবুত হবেণ্ড তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

x