উজ্জ্বল ক্যারিয়ারের জন্য কানাডায় উচ্চশিক্ষা

রীমা বড়ুয়া

শনিবার , ২৪ আগস্ট, ২০১৯ at ১১:৩১ পূর্বাহ্ণ
355

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন উন্নত দেশের শিক্ষাব্যবস্থার মতো কানাডার শিক্ষাব্যবস্থাও বিশ্বব্যাপী সমাদৃত। তাই উচ্চশিক্ষার জন্য যারা বিদেশে যেতে চান তাদের অনেকের কাছেই জনপ্রিয় দেশ কানাডা। উত্তর আমেরিকার অত্যন্ত উন্নত এই দেশটিতে আছে পড়াশোনা শেষে পছন্দের পেশায় যোগ দেয়ার সুযোগ। সেইসাথে আছে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগও। তাই যারা কানাডায় উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করবেন তারা তাদের শিক্ষা সম্পন্ন করার পর গড়ে তুলতে পারবেন উজ্জ্বল ও সমৃদ্ধ ক্যারিয়ার।
শিক্ষাব্যবস্থা, সেশন
কানাডার শিক্ষাব্যবস্থায় মূলত ডিপ্লোমা, স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও ডক্টরেট এই চার ধরনের ডিগ্রি দেয়া হয়। সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে রয়েছে ডিস্ট্যান্স লার্নিং, কন্টিনিউয়িং অ্যাডুকেশন, কো-অপারেটিভ অ্যাডুকেশন কোর্স সম্পন্ন করারও সুযোগ। কানাডাতে উচ্চশিক্ষার্থীদের ভর্তি হওয়ার জন্য রয়েছে তিনটি সেমিস্টার-জানুয়ারি থেকে এপ্রিল উইন্টার সেমিস্টার, মে থেকে আগস্ট সামার সেমিস্টার এবং সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর ফল সেমিস্টার। ফল সেমিস্টারে বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভর্তির সুযোগ থাকে বেশি কারণ অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাবর্ষ শুরু হয় এই ফল সেমিস্টারে।
অধ্যয়নের বিষয়
উচ্চশিক্ষার্থীদের জন্য কানাডাতে স্নাতক পর্যায়ে প্রায় দশ হাজার এবং স্নাতকোত্তর পর্যায়ে প্রায় তিন হাজার বিষয় আছে। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো মেডিক্যাল সায়েন্স, কম্পিউটার সায়েন্স, মেরিন অ্যাফেয়ার্স, বায়োটেকনোলজি, ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট, ইলেক্ট্রনিঙ, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ফার্মেসি, ইংরেজি, বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, অর্থনীতি, ইতিহাস, জীব বিজ্ঞান, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন, খাদ্য ও পুষ্টি বিজ্ঞান, আইন ইত্যাদি।
পড়াশোনার মাধ্যম
কানাডাতে ইংরেজি ও ফরাসি দুই ভাষাতেই পড়াশোনা করা যায়। প্রায় সব বিশ্ববিদ্যালয়েই এই দুই ভাষাতেই পড়াশোনার করার সুযোগ আছে। তবে শিক্ষার্থী কোন ভাষায় পড়তে আগ্রহী তা আগেই জানাতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে। কানাডার অধিকাংশ উচ্চমানের বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি ভাষায় পড়তে হলে পিয়ারসন টেস্ট অভ ইংলিশ একাডেমিক (পিটিই একাডেমিক), আইইএলটিএস বা টোয়েফল স্কোর থাকতে হয়। তবে শিক্ষার্থীর বর্তমান যোগ্যতার বিচারে পিটিই একাডেমিক, আইইএলটিএস বা টোয়েফল ছাড়াও পড়াশোনা করা যেতে পারে।
সেরা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়
কানাডার স্বনামধন্য ও সুপরিচিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলো রয়েছে অনটারিও, কুইবেক ও ব্রিটিশ কলাম্বিয়া প্রদেশে। এ কারণে বিদেশি শিক্ষার্থীদের কাছে কানাডার এ সকল প্রদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বেশি জনপ্রিয়। কানাডার জনপ্রিয় ও সুপরিচিত উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে আছে ইউনিভার্সিটি অভ টরন্টো, ইউনিভার্সিটি অভ মন্ট্রিল, ইউনিভার্সিটি অভ ওয়াটারলু, ইউনিভার্সিটি অভ এলবার্টা, ইউনিভার্সিটি অভ উইন্ডসর, ইউনিভার্সিটি অভ অটোয়া, ইউনিভার্সিটি অভ ভিক্টোরিয়া, ইউনিভার্সিটি অভ ব্রিটিশ কলাম্বিয়া, ইউনিভার্সিটি অভ ক্যালগরি, ম্যাকমাস্টার ইউনিভার্সিটি, ম্যাকগিল ইউনিভার্সিটি, ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অভ সাসকাচোয়ান, হাম্বার কলেজ, সেনটেনিয়াল কলেজ, কনকর্ডিয়া ইউনিভার্সিটি, ভ্যাঙ্কুভার আইল্যান্ড ইউনিভার্সিটি, শেরিডান কলেজ, ডালহৌসি ইউনিভার্সিটি, থম্পসন রিভার্স ইউনিভার্সিটি, ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি, ল্যাঙ্গারা কলেজ ইত্যাদি।
ভর্তির যোগ্যতা
কানাডাতে উচ্চশিক্ষার জন্য স্নাতক শ্রেণিতে ভর্তি হতে শিক্ষার্থীকে অবশ্যই কমপক্ষে ১২ বছর মেয়াদী শিক্ষা সার্টিফিকেট দেখাতে হবে। এ ডিগ্রি সম্পন্ন করতে সময় লাগে ৩ থেকে ৪ বছর। তাছাড়া ১ থেকে ২ বছর মেয়াদী স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের জন্য শিক্ষার্থীকে দেখাতে হয় কমপক্ষে ১৫ থেকে ১৬ বছর মেয়াদী শিক্ষা সার্টিফিকেট। তাছাড়া কানাডায় পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের জন্য ৩ থেকে ৪ বছর পূর্ণকালীন গবেষণা করার সুযোগও আছে।
দেশের ইমিগ্রেশন বিষয়ক অন্যতম প্রাচীন, সৎ ও নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান ঐতিহ্যবাহী ‘কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন’ কানাডায় উচ্চশিক্ষা গ্রহণে আগ্রহীদের ফাইল প্রসেস করে থাকে। কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন এবং ল্যাঙ্গুয়েজ ভার্সিটি-এর চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট ইমিগ্রেশন এঙপার্ট কাজী মো. আবদুর রহমান স্যার বলেন, ‘কানাডায় বিশ্ববিদ্যালয়, অঞ্চল ও পড়াশোনার ধরন অনুযায়ী সাধারণত স্নাতক ডিগ্রির জন্য শিক্ষার্থীদের ১৪ থেকে ২০ হাজার কানাডিয়ান ডলার খরচ হয়। স্নাতকোত্তর, ডক্টরাল ও এসোসিয়েট ডিগ্রির জন্য খরচ হয় ১২ থেকে ২০ হাজার ডলার। তবে বিষয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর নির্ভর করে এই ফি কমবেশী হতে পারে।’ কানাডাতে উচ্চশিক্ষায় আগ্রহীদের কিছু যোগ্যতা থাকলে পিটিই একাডেমিক, আইইএলটিএস বা টোয়েফল ছাড়াও আবেদন করা যায় বলে জানান তিনি।
কাজী মো. আবদুর রহমান স্যার আরো জানান, কানাডায় উচ্চ শিক্ষার্থীদের জন্য পড়াশোনার পাশাপাশি রয়েছে বৈধভাবে কাজ করার সুযোগও। সুবিধা অনুযায়ী কাজ করতে পারলে কানাডাতে উচ্চশিক্ষাকালীন সময়ের কাজ থেকে আয় করে সেদেশে থাকা-খাওয়া ও পড়াশোনার খরচ মিটানো সম্ভব শিক্ষার্থীদের জন্য। তাছাড়া পড়াশোনা শেষে বা শেষ না করেও অতি সহজেই কানাডায় বৈধ উপায়ে স্থায়ীভাবে বসবাস করা যায় বলেও জানান তিনি।
দুই যুগেরও অধিক সময় ধরে সততা ও নির্ভরযোগ্যতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন-এ ফাইল প্রসেস করতে কোনো অগ্রিম ফি নেয়া হয় না। ভিসা হওয়া পর্যন্ত সকল খরচ এই প্রতিষ্ঠানই বহন করে থাকে।
কানাডা সহ অন্য যেকোনো উন্নত দেশে উচ্চশিক্ষা নিতে আগ্রহীদের জন্য কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন আগামী ২৬ অগাস্ট ও ১২ সেপ্টেম্বর নগরীর জামাল খানের প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে বিকাল ৩টা ও সন্ধ্যা ৬টায় সেমিনারের আয়োজন করেছে। এগুলোতে অংশগ্রহণ করে স্মার্ট কুপন পূরণ করে ৫টি ল্যাপটপ, ৫টি স্মার্টফোন, ২০টি গিফট প্যাক, পরীক্ষার ফিসহ ফ্রী পিটিই ও আইইএলটিএস করাসহ নানা আকর্ষণীয় পুরস্কার জিতে নেয়ার সুযোগ রয়েছে বিদেশে উচ্চশিক্ষায় আগ্রহীদের জন্য। ২০১৭, ২০১৮ ও ২০১৯-এ যারা এইচএসসি পাশ করেছে তাদের জন্য রয়েছে আরো অনেক সুযোগ। যাদের পিটিই, আইইএলটিএস, টোয়েফল করা আছে বা মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে এবং ‘এ’, ‘ও’ লেভেল, ইংরেজি মাধ্যমে ব্যাচেলর কিংবা ইংরেজিতে অনার্স সম্পন্ন করা আছে তাদের জন্য রয়েছে বিশেষ ডিসকাউন্ট ও ফ্রি এয়ারটিকেট।
কানাডাতে উচ্চশিক্ষা গ্রহণে আগ্রহী শিক্ষার্থীরা বিস্তারিত জানার জন্য যোগাযোগ করতে পারেন- কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন, ভিআইপি টাওয়ার, লেভেল-১, কাজীর দেউড়ি, চট্টগ্রাম। ফোন – ০১৭২৭২৮৬১১১। ওয়েবসাইট: kaziimmigration.com.bd ই-মেইল: kaziimmigration@gmail.com ফেসবুক: www.facebook.com/kaziimmigration

x