ঈদের সাহায্য চাইতে গিয়েই বাসায় চুরি!

মোবাইল-লাগেজসহ আটক ৭

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ১৪ জুন, ২০১৮ at ৪:৫২ পূর্বাহ্ণ
36

ঈদ উপলক্ষে চাইতে গিয়েছিল তারা আর্থিক সাহায্য। সাহায্য না পেলে পরিবারের সাথে ঈদ করা হবে না, এমনটাও জানায়। কিন্তু এটা তাদের চুরির কৌশলের প্রথম ধাপ। সাহায্য চাইতে গিয়ে বাসা থেকে মোবাইল চুরির ঘটনায় সাত যুবককে আটক করেছে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। গতকাল রাত সাড়ে আটটার দিকে কোতোয়ালী থানার হাজারী লেইন মসজিদ গলির একটি ভবনের ছয় তলা থেকে চারজনকে আটক করা হয়। পরে লয়েল রোডের হাবিব আবাসিক হোটেলে অভিযান চালিয়ে চুরি হওয়া ৭টি মোবাইল ফোন, ১টি লাগেজ ও ১টি ব্যাগসহ ৩ জনকে আটক করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। নগরের গোয়েন্দা বিভাগের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (ডিবিবন্দর) আবু বকর সিদ্দিকের নির্দেশনায় সহকারী পুলিশ কমিশনার আসিফ মহিউদ্দীন ও পুলিশ পরিদর্শক মো. শাহাদাৎ হোসেন খান এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন। আটকরা হলেনমো. মোবারক হোসেন (২৩), মো. আবু বক্কর (১৯), মো. আরাফাত (১৯) রবিউল আলম (১৮), মো. শাহ আলম (২৬), মোহাম্মদ হোসেন (২৫) ও মোহাম্মদ ইউসুফ (৩৫)

নগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার আসিফ মহিউদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করে আজাদীকে জানান, মোবারক, আবু বক্কর, আরাফাত ও রবিউলকে মোবাইল চুরি করে নেওয়ার সময় বাসার মালিক মো. আকতার কামালের শোরচিৎকারে আশপাশের লোকজনের সহায়তায় মহানগর গোয়েন্দা বিভাগের বিশেষ টিম তাদের আটক করে। তাদের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে পাশের লয়েল রোডের হোটেল আল হাবিবের দোতলার ২০ নম্বর রশুমে অভিযান চালিয়ে চক্রের অপর সদস্য মো. শাহ আলম, মোহাম্মদ হোসেন ও ইউসুফ গ্রেফতার করা হয়। আটক সাত জনের কাছ থেকে চুরি করা সাতটি মোবাইল সেটও উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি বলেন, আটকরা দুই ধরনের কাজ করে থাকে। একদল মোবাইল চুরি করে, আরেক দল বিভিন্ন বাস কাউন্টার থেকে যাত্রীদের লাগেজ চুরি করে। বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে হাজারী গলির একটি ভবনে চুরি করে পালানোর সময় আমরা তাদের চারজনকে আটক করি। পরে তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে অন্যদের আটক করা হয়। তাদের নামে থানায় নিয়মিত মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

তিনি আরও বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে তাদের একটি গ্রুপ দিনের বেলা তারা বিভিন্ন বাসা এপার্টমেন্টে সাহায্য চাইতে যায়। নক করার পর দরজা খুললে নিজেদের অসহায় অবস্থা বর্ণনা করে টাকাপয়সা সাহায্য চেয়ে থাকে। এভাবে যদি কোনও ফ্ল্যাটের সদর দরজা খোলা পেয়ে যায়, তাহলে মোবাইল ও অন্যান্য দামি আসবাব চুরি করে দ্রুত ওই এলাকা থেকে সটকে পড়ে। অন্য গ্রুপ বাস কাউন্টারে ওঁৎ পেতে থাকে। সেখানে কোনও যাত্রী একটু অমনোযোগী হলেই তার ব্যাগ লাগেজ নিয়ে লাপাত্তা হয়ে যায়। গত কয়েক দিনে একে খান বাস কাউন্টার থেকে বেশ কয়েকজন যাত্রীর লাগেজ তারা চুরি করে বলে স্বীকার করেছে।

x