ইসিতে খালেদাসহ ৫৪৩ জনের আবেদন

মনোনয়ন বাতিলের বিরুদ্ধে আজ থেকে শুনানি

ঢাকা ব্যুরো

বৃহস্পতিবার , ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৫:৩৫ পূর্বাহ্ণ
63

মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে রিটার্নিং অফিসারদের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সহ মোট ৫৪৩ জন আপিল করেছেন। গতকাল বুধবার শেষ দিনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে তিনটি আসনে প্রার্থিতা ফিরে পেতে আপিল করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট ২২২টি আপিল জমা পড়েছে। এর আগে, সোমবার ৮৪টি ও মঙ্গলবার ২৩৭টি আবেদন পড়ে। সিংহভাগ আপিলই মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে। তবে, রিটার্নিং অফিসার ঘোষিত বৈধ প্রার্থীদের বিরুদ্ধেও কিছু আপিল জমা পড়েছে। আজ বৃহস্পতিবার থেকে তিন ধরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে পূর্ণাঙ্গ কমিশন আপিলের শুনানি করে সিদ্ধান্ত দেবে। সেখানে কেউ ক্ষুব্ধ হলে উচ্চ আদালতে যেতে পারবেন। মনোনয়নপত্র গ্রহণের শেষ দিনে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের ব্রিফিং করে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানান।
ইসি সচিব বলেন, ‘বৃহস্পতিবার থেকে কমিশন আপিলের শুনানি করে রায় ঘোষণা করবে। শুনানি শেষে সঙ্গে সঙ্গে সংক্ষুব্ধদের ফল জানিয়ে দেওয়া হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আপিলের প্রথম দিনে ১ থেকে ১৬০, দ্বিতীয় দিনে ১৬১ থেকে ৩১০ এবং শেষ দিন ৩১১ থেকে ৫৪৩ ক্রমিক পর্যন্ত শুনানি হবে।’ গত ২ ডিসেম্বর রিটার্নিং অফিসাররা যাচাই-বাছাই শেষে বৈধ-অবৈধ প্রার্থীর তালিকা প্রকাশের পরদিন ৩ ডিসেম্বর (সোমবার) থেকে নির্বাচন কমিশন আপিল গ্রহণ শুরু করে। গতকাল বুধবার ছিল আপিল গ্রহণের শেষ দিন। শেষদিনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে তিনটি আসনে প্রার্থিতা ফিরে পেতে রিটার্নিং অফিসারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে পৃথক আপিল জমা দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে কারাবন্দি খালেদা জিয়ার পক্ষে ফেনী ১ এবং বগুড়া ৬ ও ৭ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়।
ফেনী-১ আসনের জন্য ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, বগুড়া-৬ ব্যারিস্টার নওশাদ জমির এবং বগুড়া-৭ আসনের জন্য অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার গতকাল নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে পৃথকভাবে এই আপিল জমা দেন। ফেনী ও বগুড়ার রিটার্নিং কর্মকর্তা গত ২ ডিসেম্বর যাচাই বাছাই শেষে খালেদা জিয়ার তিনটি মনোনয়নপত্রই বাতিল ঘোষণা করেন। দুর্নীতি মামলায় দুই বছরের বেশি সাজা হওয়ার বিষয়টিকেই মনোনয়নপত্র বাতিলের কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন তারা।
প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে ৩ হাজার ৬৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এগুলো যাচাইয়ের পরে ৭৮৬ জনের প্রার্থিতা বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। ফলে বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়ায় ২ হাজার ২৭৯ জনে। দেশের ৩৯টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া দুই হাজার ৫৬৭ জন প্রার্থীর মধ্যে বাতিল হয় ৪০২ জনের মনোনয়নপত্র। স্বতন্ত্র হিসেবে দাখিল করা ৪৯৮ জনের মধ্যে ৩৮৪ জন বাতিল হওয়ার পর বৈধ প্রার্থী রয়েছে ১১৪ জন।
ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ২৬৪টি আসনে ২৮১ জন প্রার্থীর মধ্যে নৌকার বৈধ প্রার্থী ২৭৮ জন, বাতিল ৩ জন। বিএপির ২৯৫টি আসনে ধানের শীষে ৬৯৬ জন প্রার্থীর মধ্যে বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা ৫৫৫ জন, বাতিল হয়েছে ১৪১ জন। জাতীয় পার্টি ২১০ আসনে ২৩৩ জন প্রার্থীর মধ্যে লাঙ্গল প্রতীকে বৈধ প্রার্থী ১৯৫ জন, বাতিল হয়েছে ৩৮ জন।
উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২৮ নভেম্বর মনোনয়নপত্র দাখিল ও ২ ডিসেম্বর বাছাই। ৯ ডিসেম্বর প্রত্যাহার এবং ৩০ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

x