ইফতারের প্রস্তুতি

রেসিপি দিয়েছেন সুমাইয়া জাবীন

রবিবার , ৫ মে, ২০১৯ at ৬:৪০ পূর্বাহ্ণ
70

বেসনে কুমড়া

উপকরণ: মিষ্টি কুমড়া -২০০ গ্রাম, বেসন-১/২ কাপ,চালের গুঁড়া -২চা চামচ, আদাবাটা-১/২ চা চামচ, রসুন বাটা ১/২চা চামচ, হলুদের গুঁড়া-১/৪চা চামচ, লাল মরিচের গুঁড়া-১/২চা চামচ, জিরার গুঁড়া -১/২চা চামচ, বেকিং পাউডার-৩/৪চা চামচ, লবণ- ১/২চা চামচ, গরম পানি আনুমানিক ৪/৫ টেবিল চামচ, তেল-ডুবো তেলে ভাজার জন্য ।
প্রণালি: মিষ্টি কুমড়া ধুয়ে খোসা ছাড়িয়ে ১/২ সেঃ মিঃ এর মতো পাতলা করে কেটে নিয়ে কুমড়ার টুকরার উপর লবণ ছিটিয়ে নিন। একটি পাত্রে বেসন, চালের গুঁড়া, আদাবাটা, রসুনবাটা, হলুদের গুঁড়া, লাল মরিচের গুঁড়া, জিরার গুঁড়া, বেকিং পাউডার ও লবণ দিয়ে ভালোভাবে একসাথে মিশিয়ে নিন। তারপর শুকনা মিশ্রণটিতে পানি দিয়ে মিহি মিশ্রণ তৈরি করে ৩০/৩৫ মিনিট এর মত রেখে দিন। মাঝারি আঁচে তেল গরম হয়ে এলে তৈরি মিশ্রণের মধ্যে কুমড়ার স্লাইচ ডুবিয়ে তেলে দিন। তারপর আরো ৪/৫ পিচ তেলে দিয়ে সুন্দর বাদামী কালার না হওয়া পর্যন্ত ভাজুন। ভাজা হয়ে গেলে অতিরিক্ত তেল শুষে নেবার জন্য পেপার টাওআল এর উপর রাখুন। একইভাবে সব কুমড়ার স্লাইচ ভাজুন।

চিড়ার চপ

উপকরণ : চিড়া ১কাপ, পিঁয়াজ কুচি ১/২ কাপ, কাঁচা মরিচ কুচি পছন্দ মতো, গোল মরিচ গুঁড়া পছন্দ মতন, লবণ স্বাদ মতন, চালের গুঁড়া ১ টেবিল চামচ (মচমচে করার জন্য, যদি আপনি চান), ডিম ১ টা, ধনে পাতা কুচি প্রয়োজনমত, তেল চপ ভাজার জন্য পরিমাণমত।
প্রণালি : চিড়া ভাল করে ধুয়ে, পানিতে ৫ মিনিটের মতন ভিজিয়ে রাখতে হবে। ৫ মিনিট পর ভাল করে পানি ঝরিয়ে চিড়াগুলোকে একটি বাটিতে নিতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে চিড়াতে যেন পানি না থাকে। এরপর এক এক করে সব উপকরণ মিশাতে হবে। এইবার এই মিশ্রণ দিয়ে ছোট ছোট বল বানিয়ে, চপ এর মতন সাইজ করে একটা প্লেটে রাখতে হবে। এখন ফ্রাই প্যানে অল্প তেল দিয়ে চপগুলো ভাজতে হবে। যখন চপ গুলো বাদামি রঙ হবে তখন প্লেটে তুলে রাখুন। তৈরি হয়ে গেল মজাদার চিড়ার চপ!

মচমচে পিঁয়াজু

উপকরণ : মসুর ডাল ১ কাপ, পেঁয়াজ কুচি- ২ টা মাঝারি আকারের, কাঁচামরিচ কুচি ৬-৭ টা বা স্বাদমত, চালের গুঁড়া ১ ও ১/২ টেবিল চামচ, জিরা গুঁড়া ১/২ চা চামচ, হলুদ গুঁড়া ১/২ চা চামচ, আদা বাটা ১/২ চা চামচ, রসুন বাটা ১/২ চা চামচ, ধনে পাতা কুচি ২ টেবিল চামচ, লবণ ৩/৪ চা চামচ বা স্বাদমত, তেল ডুবো তেলে ভাজার জন্য যতটুকু লাগে।
প্রণালি : প্রথমে মসুর ডাল ভাল করে ধুয়ে ২-৩ ঘণ্টা কুসুম গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সবচেয়ে ভালো হয় যদি আগের রাতে ভিজিয়ে রাখেন, পুরো রাত্রি ভিজিয়ে রাখেন। তারপর পানি ফেলে দিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন। খুব মিহি করে ব্লেন্ড করার দরকার নেই। একটু দানাদার থাকতে নিয়ে নিন। আর পারলে ব্লেন্ডারের জায়গায় শিল-পাটা দিয়েও ডাল বাটতে পারেন। ব্লেন্ড করা বা বাটা ডাল একটি বাটিতে নিয়ে তেল ছাড়া সব উপকরণ দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন। এবার প্যানে তেল গরম করে ১ টেবিল চামচ মত ডালের মিশ্রণ নিয়ে গোল করে তেলে ছাড়ুন। প্যানে জায়গা অনুযায়ী আরও পিঁয়াজু তেলে দিন এবং মাঝারি আঁচে উভয় পাশ হাল্কা বাদামী করে ভেজে নিন।
ভাজা হয়ে গেলে কিচেন টিস্যুতে তুলে নিন। এভাবে সব পিঁয়াজু ভেজে গরম গরম পরিবেশন করুন আপনার ইফতারির টেবিলে।

বেগুনি

উপকরণ: ছোলার ডালের বেসন দেড় কাপ, চালের গুঁড়া আধা কাপ, লম্বা বেগুন ১-২টি, মরিচ গুঁড়া আধা চা-চামচ, হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, বেকিং পাউডার এক চা-চামচ, রসুন বাটা এক চা-চামচ, আদা বাটা এক চা-চামচ, লবণ পরিমাণমত, তেল (ভাজার জন্য) পরিমাণমত
প্রণালি : বেগুন ও তেল বাদে বাকি সব উপকরণ একসঙ্গে পানি দিয়ে মিশিয়ে থকথকে গোলার মত করে ফেলুন। এরপর কিছু সময় ঢেকে রাখুন। বেগুন পাতলা টুকরা করে কেটে সামান্য লবণ ও হলুদ মাখিয়ে রাখুন। এরপর কড়াইয়ে তেল গরম করে বেগুন বেসনের গোলায় ডুবিয়ে ডুবো তেলে ভাজতে শুরু করুন আস্তে আস্তে। খেয়াল রাখবেন যেন মচমচে বাদামি রঙ করে ভাজা হয়। এরপর তেল থেকে উঠিয়ে কিচেন টাওয়েল অথবা কাগজের ওপর রাখতে হবে যাতে অতিরিক্ত তেল শুষে নেয়। তৈরি হয়ে গেল গরমাগরম মজাদার বেগুনি!

প্রণ বল

উপকরণ : পাউরুটি ৬/৭ স্লাইস, ডিম ১ টি, চিংড়ি ২৫০ গ্রাম, ধনেপাতা কুচি পরিমাণ মত, পিঁয়াজ কুচি ১/৪ কাপ, কাঁচামরিচ কুচি ১ টেবিল চামচ, আদা বাটা ১/২ চা চামচ, রসুন বাটা ১/২ চা চামচ, লবণ পরিমাণ মত, ধনে গুঁড়া ১/২ চা চামচ, জিরা গুঁড়া ১/২ চা চামচ, তেল পরিমাণ মত।
প্রণালি : প্রথমে পাউরুটির টুকরোগুলোকে ছোট ছোট কিউব করে কাটতে হবে। এরপর একটি পাত্রে একে একে পিঁয়াজ কুচি, কাঁচামরিচ কুচি, ধনেপাতা কুচি, আদা বাটা, রসুন বাটা, লবণ দিয়ে, একসাথে সব মেখে নিতে হবে ভালো করে। এরপর ডিম এবং খোসা ছাড়ানো চিংড়িগুলোকে মিশ্রণের সাথে যোগ করতে হবে। কিছুক্ষণ (১৫ মিনিট) ঢেকে রেখে দিতে হবে। এরপর কিউব করে কাটা কিছু পাউরুটি হাতে নিয়ে এর ওপর কিছুটা মিশ্রণ নিয়ে এর ওপর আবার কিছু পাউরুটির টুকরো দিয়ে বলের আকার দিতে হবে। পাউরুটিগুলোকে ভালো করে চেপে চেপে গোল করতে হবে, নাহলে তেলে ছাড়লে ছড়িয়ে যাবে। এরপর তেল গরম করে হালকা আঁচে বলগুলো ভাজতে হবে। জ্বালের ব্যাপারে একটু সতর্ক থাকতে হবে যেন তেল খুব বেশি গরম না হয়ে যায়। নয়ত ভেতরের চিংড়ি সিদ্ধ হবে না। বাদামী রঙের হয়ে আসলে নামিয়ে ফেলতে হবে।
ব্যাস তৈরি হয়ে গেল প্রণ বল। টমেটো সস বা হোয়াইট সসের সাথে গরম গরম পরিবেশন করুন।

চিকেন কাটলেট

উপকরণ: মুরগীর বুকের মাংস ১/২ কেজি, ব্রেড ক্রাম্ব পরিমাণ মত, টক দই আধা কাপ, টমেটো সস ২ টেবিল চামচ, সয়া সস ২ টেবিল চামচ, চিলি সস ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা ১ চা চামচ রসুন বাটা ১ চা চামচ, লবণ পরিমাণ মত, মরিচ গুঁড়া ২ টেবিল চামচ, গোলমরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, গরম মশলা গুঁড়া ১/২ চা চামচ, ডিম ১ টা, তেল পরিমাণ মত।
প্রণালি : প্রথমে বুকের মাংস পাতলা স্লাইস করে কেটে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর এর মধ্যে টক দই, টমেটো সস, সয়া সস, চিলি সস, আদা বাটা, রসুন বাটা, লবণ, মরিচ গুঁড়া, ধনে গুঁড়া, জিরা গুঁড়া, গোলমরিচ গুঁড়া এবং গরম মশলা গুঁড়া একে একে দিয়ে দিতে হবে। সব উপকরণ দিয়ে মুরগীটা ভালো করে মেরিনেট করে ১ ঘন্টা রেখে দিতে হবে। এরপর একটি পাত্রে ডিম ভালো করে ফেটিয়ে নিতে হবে এবং অপর পাত্রে ব্রেডক্রাম্ব নিতে হবে। মুরগীর টুকরোগুলো ডিমে চুবিয়ে, ব্রেডক্রাম্বে গড়িয়ে নিতে হবে। একটি পাত্রে তেল দিয়ে, গরম হলে তাতে টুকরোগুলো ছেড়ে দিতে হবে, লাল রং ধারণ করলে নামিয়ে নিতে হবে। হয়ে গেল চিকেন কাটলেট।

টক দইয়ের শরবত

উপকরণ : টক দই ১ কাপ, গুঁড়া দুধ ৩ টেবিল চামচ, লবণ ১/২ চা চামচ, চিনি ১/২ কাপ, পানি পরিমাণ মত, কিছু বরফের টুকরো।
প্রণালি : সবগুলো উপকরণ একসাথে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা এক গ্লাস শরবত আপনার সারাদিনের রোজা শেষে, ক্লান্তিকে মুহূর্তেই দূর করে দিবে।

সুজির বড়া

উপকরণ: সুজি ২৫০ গ্রাম, ডিম ১টা, চিনি পরিমাণ মত।
প্রণালি : সবগুলো উপকরণ একসাথে মিশিয়ে নিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে চিনিটা যেন সম্পূর্ণ গলে যায়। এরপর ফ্রাই প্যানে তেল দিয়ে অল্প আঁচে রাখতে হবে। সুজির মিশ্রণ থেকে অল্প অল্প করে নিয়ে বড়ার আকারে তেলে ছাড়তে হবে। প্রথমে অনেকটা নরম থাকবে, পুরোপুরি ভাজা হয়ে গেলে শক্ত হয়ে যাবে। মজাদার সুজির বড়া তৈরি। বক্সে করে রেখে দুই তিন দিন খেতে পারবেন।

x