ইতালির বাসিলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু হলো সোশ্যাল বিজনেস সেন্টার

শনিবার , ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ at ৪:৩৫ পূর্বাহ্ণ
13

ইতালির বাসিলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু হলো ৬০তম ইউনূস সোশ্যাল বিজনেস সেন্টার। নোবেল লরিয়েট প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস সমপ্রতি ইতালির মাতেরা নগরী সফরকালে বাসিলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে এ বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন। প্রফেসর ইউনূস ইতালির জাতীয় নির্বাচনে বিজয়ী ফাইভ স্টার পার্টির নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠক করন। দলটি তাদের নির্বাচনী প্রচারাভিযানে প্রফেসর ইউনূসের নীতি ও কর্মপন্থা অনুযায়ী কাজ করবে বলে অঙ্গীকার করে।

এ ইউনূস সেন্টারটির অন্যতম লক্ষ্যবেকারত্ব বিশেষ করে যুববেকারত্ব মোকাবেলায় সামাজিক ব্যবসার মডেল ব্যবহার করা। পাঁচ হাজার বছরের পুরোনো ও পুরাতন প্রস্তর যুগে প্রতিষ্ঠিত মাতেরা নগরীর বিশেষ ঐতিহাসিক গুরুত্ব রয়েছে। আলেপ্পোর পরই এটি পৃথিবীর দ্বিতীয় প্রাচীনতম নগরী। পাবলিক গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে এটি পরিচিত। এটি ইতালির তৃতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, যেখানে ইউনূস সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ইতোপূর্বে ফ্লোরেন্স বিশ্ববিদ্যালয় ও বলোনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ইউনূস সোশ্যাল বিজনেস সেন্টার প্রতিষ্ঠিত হয়। সোশ্যাল বিজনেস সেন্টার হচ্ছে একটি গবেষণা কেন্দ্র যেখানে শিক্ষক, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংগঠন ও কমিউনিটি সমাজের জরুরি সমস্যাগুলোর মোকাবেলায় প্রফেসর ইউনূসের নীতিদর্শন অনুসারে সামাজিক ব্যবসার ধারণা ও সামাজিক ব্যবসা গড়ে তোলে। বিশ্বব্যাপী সোশ্যাল বিজনেস সেন্টারগুলো বাংলাদেশস্থ ইউনূস সেন্টারের সহযোগিতায় একটি নেটওয়ার্ক হিসেবে কাজ করে।

প্রফেসর ইউনূস মাতেরার বিশিষ্ট নাগরিক, রাজনৈতিক দলের নেতা, মেয়র ও কাউন্সিলর এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্রদের এক সমাবেশে বক্তৃতা দেন।

প্রফেসর ইউনূসের সাথে বাসিলিকাতার অর্থমন্ত্রী সাক্ষাৎ করেন এবং তাঁকে বাসিলিকাতার বেকার তরুণদের উদ্যোক্তায় পরিণত করতে একটি কর্মসূচি চালুর অনুরোধ জানান। উল্লেখ্য, বাসিলিকাতার ৪০ শতাংশেরও বেশী তরুণ বেকার। অর্থমন্ত্রী তাঁর পরবর্তী বাজেট বক্তৃতায় ইউনূস সেন্টারের সাথে একটি সহযোগিতা কর্মসূচির প্রস্তাব করবেন বলে প্রফেসর ইউনূসকে জানান।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন তার ২০১৯ সালের ‘সাংস্কৃতিক রাজধানী’ হিসেবে মাতেরাকে নির্বাচিত করেছে। বছরটি উদযাপন করতে মাতেরা নগরী ‘মাতেরা ২০১৯’ কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। তিনি এ সম্মেলনের আয়োজনে এবং সামাজিক ব্যবসায় সকল ভূমধ্যসাগরীয় দেশের প্রতিশ্রুতি পেতে ইউনূস সেন্টারের সহযোগিতা চান। তাঁর প্রতিষ্ঠান এ লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ধারণাপত্র তৈরির দায়িত্ব নিয়েছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

x