আ. লীগ-এলডিপি পরস্পরের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ

চন্দনাইশে দু’দলের ৬ কর্মীসহ আহত ৭

চন্দনাইশ প্রতিনিধি

বৃহস্পতিবার , ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৫:৩৫ পূর্বাহ্ণ
436

চন্দনাইশ সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের মোহাম্মদখালী এলাকায় আওয়ামী লীগ ও এলডিপি পরস্পরের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ এনেছে। আওয়ামী লীগ বলছে, তাদের উপর প্রতিপক্ষ ককটেল হামলা চালিয়েছে। অন্যদিকে এলডিপির দাবি, তাদের কিছু কর্মীর ওপর সশস্ত্র ডাকাত দল হামলা চালালে স্থানীয় লোকজন এর প্রতিরোধ করেছে। এ ঘটনায় উভয় দলের ৬ কর্মীসহ ৭ জন আহত হয়েছেন। গত মঙ্গলবার রাতে এ হামলার ঘটনা ঘটে।
এ বিষয়ে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বরকল ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের একদল কর্মী ধোপাছড়ি ইউনিয়নে দলীয় সভা শেষে সাতবাড়িয়ার বহরমপাড়ায় আরেকটি সভায় যাওয়ার পথে এলডিপির সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে হামলা চালিয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের কর্মীরা সাতবাড়িয়া মোহাম্মদখালী গ্রামে পৌঁছলে সেখানকার স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বারান্দায় বেশকিছু লোকজনকে জড়ো হতে দেখেন। এ সময় তাদের পরিচয় জানতে চাওয়া হলে স্কুলের বারান্দা থেকে আমাদের কর্মীদের উপর পর পর তিনটি ককটেল নিক্ষেপ করা হয়। পরে আমাদের কর্মীরা প্রতিরোধ করলে উভয় পক্ষের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু হয় এবং ইটের আঘাতে তিন যুবলীগ কর্মী আহত হন। আহতরা হলেন, মোহাম্মদ বদন আলী (৪২), মোহাম্মদ ইউনুচ (৩২), মোহাম্মদ আরমান (২৭) এবং স্থানীয় দোকানদার মোহাম্মদ ইলিয়াছ (২৭)। আহতদের মধ্যে বদন আলীকে বিজিসি ট্রাস্ট হাসপাতালে ভর্তি এবং বাকিদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
অন্যদিকে এ বিষয়ে উপজেলা এলডিপির সাধারণ সম্পাদক আকতার আলম বলেন, আমাদের কিছু কর্মী এলাকার একটি দোকানে বসে গল্প করছিলেন। এ সময় হঠাৎ চিহ্নিত কয়েকজন ডাকাতের নেতৃত্বে একদল সশস্ত্র দুর্বৃত্ত তাদের উপর হামলা চালায়। এতে আমাদের কর্মী জাফর আহমদ (৪২), জাহাঙ্গীর আলম (৩৮) ও মোহাম্মদ সোহেল (২৭) আহত হন। আহতদের মধ্যে জাফর আহমদকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি এবং বাকিদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনার সাথে রাজনৈতিক কোনো সম্পর্ক নেই বলেও দাবি করেন এই এলডিপি নেতা।
চন্দনাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কেশব চক্রবর্তী জানান, তিনি হামলা ও ককটেল চার্জের খবর শুনেছেন। তবে এ ব্যাপারে থানায় কেউ অভিযোগ করেনি বলে জানান ওসি।

x