আসুন নিজেই আমরা নিজেদের বাঁচাই

ফেরদৌস আরা আলীম

শনিবার , ২৫ নভেম্বর, ২০১৭ at ৪:৩৬ পূর্বাহ্ণ
81

সরকারিবেসরকারি যে কোনও প্রতিষ্ঠানে নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ তাঁর যোগ্যতা যাচাই করেই তাঁকে নিয়োগ দিয়ে থাকেন নিশ্চয়ই। এমন একজন শিক্ষক

(নারী) কি করে কোন বুদ্ধিতে তাঁর ফেসবুকবন্ধুর আহ্বানে চট্টগ্রাম থেকে যশোরে ছুটে যান ? ফেসবুকে বন্ধুত্ব যে কচুপাতার পানি হতেই পারে তিনি জানেন না ? ভুয়া নামঠিকানা দিয়ে হাজারেবিজারে ফেসবুক আইডি নিয়ে কত কথা হচ্ছে ! তাঁর যশোরের বন্ধুটিকে কি চট্টগ্রামে আনা যেত না ? তিনি কি সাহস দেখাতে গেলেন ? অথবা বন্ধুত্বের গভীরতা ? তাঁকে অচেনা জায়গায় অখ্যাত হোটেলে আটকে রেখে তাঁর পরিবারের কাছে মুক্তিপণ দাবি করতে পারে তাঁর ফেসবুক বন্ধু, তিনি নিশ্চয়ই ভাবতেও পারেন নি। কিন্তু কেন ভাবেননি ?বিশ্ববিদ্যাপীঠের সর্বোচ্চ সনদপ্রাপ্তিও যে যথার্থ শিক্ষিত হওয়ার নিশ্চয়তা দেয় না এ আর কোনও নতুন কথা নয়। একের পর এক পাস দেওয়ার সঙ্গে শিক্ষাদীক্ষার সম্পর্ক যে খুব গভীর বা নিবিড় তাও বলার উপায় নেই। শিক্ষকমাত্রই যে সুশিক্ষাদানের ক্ষমতা রাখেন জোরগলায় তাও আমরা বলতে পারছি না। আবার শিক্ষক হলেই যে তিনি পরিণত মনমানসের অধিকারী তাও বলা যাবে না। তাতে দোষের কিছু নেই কারণ মন তো মনই। দেহের বয়স বা অর্জিত শিক্ষার সমান তালে বা সমান্তরালে সে নাও চলতে পারে। তবু একজন শিক্ষক, যিনি শিশুনিকেতন বা কিন্ডারগার্টেন থেকে প্রাতিষ্ঠানিক যেকোনও পর্যায়ে শিক্ষাদানের কাজে রয়েছেন তাঁর উপর আমরা ভরসা করি। সরকারিবেসরকারি যে কোনও প্রতিষ্ঠানে নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ তাঁর যোগ্যতা যাচাই করেই তাঁকে নিয়োগ দিয়ে থাকেন নিশ্চয়ই। এমন একজন শিক্ষক (নারী) কি করে কোন বুদ্ধিতে তাঁর ফেসবুকবন্ধুর আহ্বানে চট্টগ্রাম থেকে যশোরে ছুটে যান ? ফেসবুকে বন্ধুত্ব যে কচুপাতার পানি হতেই পারে তিনি জানেন না ? ভুয়া নামঠিকানা দিয়ে হাজারেবিজারে ফেসবুক আইডি নিয়ে কত কথা হচ্ছে ! তাঁর যশোরের বন্ধুটিকে কি চট্টগ্রামে আনা যেত না ? তিনি কি সাহস দেখাতে গেলেন ? অথবা বন্ধুত্বের গভীরতা ? তাঁকে অচেনা জায়গায় অখ্যাত হোটেলে আটকে রেখে তাঁর পরিবারের কাছে মুক্তিপণ দাবি করতে পারে তাঁর ফেসবুক বন্ধু, তিনি নিশ্চয়ই ভাবতেও পারেন নি। কিন্তু কেন ভাবেননি ?

এই সেদিন, কি হলো নগরীতে ? বান্ধবীদের সঙ্গে বেড়ানোর সাধ পূরণ করে ঘরে ফিরছিল মেয়েটি। অন্য বান্ধবীরা এবং অন্যসব যাত্রী নেমে গেল। তার পথ আরেকটু বাকি। ওইটুকু পথের আশ্বাস সে নিশ্চয়ই পেয়েছিল। তারপর তার চোখের উপর বাসের দরজাজানালা বন্ধ হলো ত্বরিৎ গতিতে। এই মেয়েটি কি রূপার কথা ভুলে গেল ? সে বা তারা (পোশাক শ্রমিক) কি খবরের কাগজ পড়ে না ? টিভি দেখে না ? এসব নিয়ে আলোচনা করে না নিজেদের মধ্যে? ও কি ভেবেছিল? বহদ্দারহাট থেকে চান্দগাঁওণ্ড কতটুকু বা পথ ? কিন্তু রাস্তা তো অনন্ত আর বাসের চাকা ঘোরানোর চালক তো আছে।

অতএব যা হবার (নয়) তাই হলো। সহকারী নিজের কাজ শেষ করে চালকের আসনে বসে চালককে ছুটি দিল। এবারে চালক তার কাজ নির্বিঘ্নে শেষ করে (ধর্ষণণ্ড রকম দেখে মনে হয় কাজই বটে এবং বেশ গুরুত্বপূর্ণ কাজ।) মেয়েটিকে নামিয়ে দিল। ভাগ্যিস, রূপার পরিণতি ওর হয় নি। তবু ভালো, দেরিতে হলেও মেয়েটি সাহস করে থানায় গেছে এবং কপাল ভালো তার, থানা তাকে সহযোগিতা দিয়েছে। সাহায্য করেছে।

এই নগরীরই একটি কলেজে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে পড়াশুনা করছে মেয়েটি। এক বান্ধবী এবং এক পরিচিত তরুণসহ বাসা খুঁজতে বেরিয়েছে। এক পর্যায়ে তরুণের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় তার। উত্তেজিত তরুণ লুকনো কৃপাণ (কাটার) বের করে রক্তারক্তি কাণ্ড ঘটায়। মেয়েটি আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে। মিদাতের কথা মনে পড়ে যাবে আমাদের। স্কুল জীবনের এক বন্ধুর বাড়ির ছাদে আরেক বখে যাওয়া বন্ধুর উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় তরুণী মিদাত, সুশ্রী নিষ্পাপ একটি মেয়ে। না, বন্ধুর প্রেমের প্রস্তাব সে মেনে নিতে পারে নি।

এক প্রবাসীর স্ত্রীসহ আরও ৫ তরুণীর জীবন এলোমেলো করে দিয়েছেশরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জের নারায়ণপুর ইউনিয়নের ছাত্রলীগ নেতা (বহিষ্কৃত)। ওই নেতার পাতা ফাঁদে পা দিয়েছে এরা প্রত্যেকে। প্রবাসীর স্ত্রীকে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা পাঠিয়ে দিয়েছে তার বাপের বাড়িতে। এক তরুণী গ্রামছাড়া হয়েছে। দুজনের কলেজ শিক্ষার পাট চুকেছে। ওদের আপত্তিকর ছবি ও ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ফেসবুকে, মোবাইলে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রশ্নটা হচ্ছে সে ফাঁদটি কেমন যে ফাঁদে মেয়েরা একের পর এক ধরা পড়ছে ? একপক্ষ যখন ফাঁদে ফেলার তরিকাগুলো শিখছে অন্যপক্ষ সেগুলো দেখছে। দুপক্ষেরই অবলম্বন ইন্টারনেট, সামাজিক মাধ্যম ও স্মার্টফোনণ্ড যার সবই এখন সহজলভ্য। অন্যদিকে সুস্থ বিনোদনের সুযোগ নেই। সমাজে নীতিনৈতিকতা ও সামাজিকতার শিক্ষা নেই। পরিবারে অভিভাবক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকশিক্ষিকা সকলেই অসহায়। বখাটে, বেপথু সন্তানের কাছে পরিবারের সদস্যরা যেন জিম্মি। বহু বহু মূল্যবোধসম্পন্ন ভদ্র, শিক্ষিত পরিবার বখাটে সন্তানের উগ্রমূর্তি, উদ্ধত আচরণ ও অসৎ বন্ধুসঙ্গের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে। ওদের উচ্ছন্নে যাবার, বিগড়ে দেবার সহজ ও সুলভ উপকরণে ভেসে যাচ্ছে দেশ। পরিবার ও সমাজের রুখে দাঁড়াবার শক্তি কে যোগাবে? শিক্ষক? স্কুলের শ্রেণীকক্ষে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন বরগুনার বেতাগী উপজেলার মোকমিয়া ইউনিয়নের একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। স্কুল ছুটির পর স্বামীর সঙ্গে স্কুলের বারান্দায় বসে গল্প করছিলেন তিনি। তাঁর স্বামীকে মারধর করে এক কক্ষে বেঁধে রেখে অন্য কক্ষে তাঁর উপর নির্যাতন চালানো হয়। কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়নের নোয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঢুকে একদল দুর্বৃত্ত এক নারী শিক্ষককে লাঞ্ছিত করে সদর্পে বেরিয়ে গেছে। ওইদিন ছুটির পর অভিভাবক সমাবেশ ছিল। সে অনুষ্ঠানের অতিথি শিক্ষা কর্মকর্তা, সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তখনও প্রধান শিক্ষিকার কক্ষে আলাপআলোচনারত। শিশু সন্তানসহ লাঞ্ছিত শিক্ষিকা বসেছিলেন অন্যত্র। তবু ধরা যাক, পারিবারিক শিক্ষা ও প্রাথমিক শিক্ষা অব্দি শিশুকে নিয়ন্ত্রণে রাখা গেল, সঠিক শিক্ষার পথও দেখানো হলো। কিন্তু তার জন্য গণ্ডির বাইরে তখন অপেক্ষা করে আছে মুক্তবাজার বিশ্ব, ভোগ্যপণ্য প্রধান সমাজ এবং তার চোখের উপর দৃশ্যমান থাকবে নারীকে পণ্য করে তোলার ও ভোগ করার যাবতীয় আয়োজন। শিশুদের উপযোগী নয় এমন হাজার হাজার ভিডিও ইউটিউবে দেখা যাচ্ছেণ্ড এ খবর দিয়েছে খোদ নিউইয়র্ক টাইমস। অন্যদিকে, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের (যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা) ৪০০০ নারীর উপর এক জরিপের ভিত্তিতে করা গবেষণায় দেখা গেছে যে প্রতি ৫ জনে ১ জনের বেশি নারী অনলাইনে হয়রানির শিকার হচ্ছে এবং সে হয়রানির ধরণ যৌনতা ও নারী বিদ্বেষের। যৌন হয়রানির হুমকি পেয়েছেন এদের এক চতুর্থাংশ নারী।

যুক্তরাজ্যে কয়েকজন এমপির বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নমূলক আচরণের অভিযোগের একটা ডামাডোল চলছে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে। এরই মধ্যে চার চারজন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মন্ত্রী পরিষদে কাজ করা বর্তমান প্রতিরক্ষামন্ত্রী মাইকেল ফ্যালন পদত্যাগ করেছেন। তাঁর বিরুদ্ধে আপত্তিকর আচরণের কিছু অভিযোগ এসেছে যার বেশির ভাগ তিনি বলেছেন, মিথ্যে। তবে হ্যাঁ, ২০০২ সালে এক সান্ধ্য ভোজ সভায় সাংবাদিক জুলিয়া হাটলিব্রিউয়ারের হাঁটুতে হাত বোলানোর মতো নিম্নমানের একটি কাজ তিনি করেছিলেন এবং সেজন্য ক্ষমাও চেয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন।

ব্রিটেনে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির এমপিদের সঙ্গে কাজ করা কর্মীরা ৩৬ জন এমপির বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ এনেছেন। তালিকাটি ক্রমশ দীর্ঘ হচ্ছে এবং এরই মধ্যে পদত্যাগ করেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রীণ্ড একটু আগে যার কথা বলেছি। প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে দলীয় কর্মীদের নারীর প্রতি যৌন হয়রানি বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেবার কথা ঘোষণা করেছেন। মাইকেল ফ্যালন সে ঘোষণাকে স্বাগতও জানিয়েছেন। ফ্যালন বলেছেন, ১০/১৫ বছর আগে যে বিষয়গুলো বাহবা পেত এখন সেগুলো আপত্তিকর বিবেচিত হচ্ছে। থেরেসা মে সব দলের সম্মতিতে নারীর সঙ্গে আপত্তিকর আচরণ বন্ধে একটি স্বাধীন সংস্থা গড়ে তোলার কথা বলেন। এটিকে আমরা একটি চমৎকার দিকনির্দেশক এবং অনুসরণীয় পদক্ষেপ বলে মনে করি। আমাদের দেশে ‘আপত্তিকর আচরণ’ বলে কিছু নেই; এখানে সরাসরি ধর্ষণ চলে। এবং এ ধর্ষণের মাত্রা ইতিহাসের সকল পর্যায় অতিক্রম করেছে বলে প্রফেসর সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী তাঁর সাম্প্রতিক বক্তব্যে বলেছেন। আমরা জানি আমাদের ধর্ষিতাকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অভিযোগ জানাতে গিয়ে বসে থাকতে হয়। এরই মধ্যে কোনও টেলিফোন এলে ধর্ষণের অভিযোগ মারপিটের অভিযোগে রূপ নেয় ঠিক যেমন ডাকাতির অভিযোগ সিঁদেল চুরি হয়ে যায়। অথচ ধর্ষণের অভিযোগ তাৎক্ষণিক নিতে হয় এবং ধর্ষিতা ও তার পরিবারের জন্য বিশেষ সংস্থা (সেলও হতে পারে) অত্যন্ত জরুরি। এই একই সংস্থা সেইসব পরিবারকেও সাহায্য করবে যারা তাদের বখাটে সন্তানের শক্তির কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে। এই সংস্থাটিই ক্রিমিনাল জাস্টিস সিস্টেমের প্রতি ধাপে ধর্ষিতাকে সাহায্য করবে।

যুক্তরাষ্ট্রের খ্যাতিমান চলচ্চিত্র প্রযোজক হার্ভি উইনস্টেলের বিরুদ্ধে শীর্ষ স্থানীয় অভিনেত্রীসহ অভিনয় শিল্পীদের প্রতি যৌন হেনস্থার গণঅভিযোগের ঘটনার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নারীরা ‘মি টু’ হ্যাশট্যাগ দিয়ে নিজেদের অভিজ্ঞতা প্রকাশ করার কাজে নেমেছেন। (নারী পাতায় মাধব দীপের নিবন্ধটি স্মর্তব্য।) চাই যে আমাদের নারীরা ফেসবুকে বন্ধুত্বের আসর নিয়ে তোলপাড় না তুলে নিজেদের শিক্ষিত করে তুলবেন এবং নিজেকে নিজেই রক্ষা করার ব্রত নেবেন।

x