আলমগীর সিরাজকে লায়ন্স ক্লাবের গোল্ড মেডেল অ্যাওয়ার্ড প্রদান

লায়ন্স ক্লাবের মূল মন্ত্র হচ্ছে মানুষকে ভালোবাসা : কাজী আকরাম

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ১ নভেম্বর, ২০১৮ at ৪:০৯ পূর্বাহ্ণ
136

একুশে পদক প্রাপ্ত শিক্ষাবিদ, প্রফেসর এমিরেটাস ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ড. আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজুদ্দীনকে গোল্ড মেডেল অ্যাওয়ার্ড প্রদান করেছে লায়ন্স ক্লাবস ইন্টারন্যাশনাল জেলা ৩১৫-বি৪ বাংলাদেশ। গতকাল বুধবার রাতে নগরীর ইন্সটিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে তাঁর হাতে এ পদক তুলে দেন লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনালের আন্তর্জাতিক পরিচালক লায়ন কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ। পদক তুলে দিয়ে তিনি বলেন, মানবতার সেবার চেয়ে বড় কোন ধর্ম নেই। প্রতিটি ধর্মেরই মূল কথা হচ্ছে মানবসেবা। আর আমরা লায়ন সদস্যরা পৃথিবীর আনাচে কানাচে মানুষের সেবা করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, পৃথিবীর ২১০টি দেশে পনের লাখেরও বেশি লায়ন সদস্য রাতে দিনের কখনো না কখনো মানুষের সেবা করছেন। লায়ন কাজী আকরাম উদ্দীন আহমেদ গোল্ড মেডেলে ভূষিত হওয়ায় প্রফেসর আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজুদ্দীনকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, আপনার ভিতরে মানুষের প্রতি যেই প্রেম দেখলাম তাই মূলত লায়নিজম। আপনাকে গোল্ড মেডেলে ভূষিত করে চট্টগ্রামের লায়ন সদস্যরা সম্মানিত হয়েছেন।
লায়ন্স জেলা গভর্নর লায়ন নাসির উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আন্তর্জাতিক পরিচালক লায়ন কাজী আকরাম উদ্দীন আহমেদ। সংবর্ধিত অতিথি ছিলেন একুশে পদক প্রাপ্ত শিক্ষাবিদ, প্রফেসর এমিরেটাস ড. আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজুদ্দীন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, লায়ন্স জেলা ৩১৫ এর সদ্য প্রাক্তন জেলা গভর্নর লায়ন মনজুর আলম মঞ্জু, প্রথম ভাইস জেলা গভর্নর লায়ন কামরুন মালেক। সাবেক জেলা গভর্নরদের মধ্যে লায়ন এম এ মালেক বক্তব্য রাখেন।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি লায়ন কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, সব ধর্মের মূল কথা মানুষকে ভালোবাসা। আর লায়ন্স ক্লাবের মূল মন্ত্রও হচ্ছে মানুষকে ভালোবাসা, ভালো মানুষকে ভালোবাসা। তাই আজ একজন ভালো মানুষকে সংবর্ধনা দিল লায়ন্স ক্লাব। সংবর্ধিত ব্যক্তি শুধু একজন ভালো মানুষ নয়, একজন ভালো শিক্ষকও। এই সংবর্ধনায় লায়ন্স ক্লাব গর্বিত, লায়নরা ধন্য। লায়ন্সের আন্তর্জাতিক পরিচালক চট্টগ্রামের লায়ন্স ক্লাবের সদস্যদের সেবার কাজে আরো বেশি প্রতিযোগিতার আহবান জানান।
সংবর্ধনার জবাবে ড. আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজুদ্দীন বলেন, বিশ্বসভ্যতার নির্যাস হচ্ছে মানব কল্যাণ। লায়ন বা বিশ্বব্যাপী লায়ন্স ক্লাবের যে আদর্শ তাও বিভিন্ন ধর্মের মূল কথা, মানবসেবা। যা বিশ্বব্যাপী করে যাচ্ছে লায়ন্স ক্লাব। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, আজ পেশাজীবীদের মধ্যে নীতি নৈতিকতার ধস নেমেছে। প্রত্যেক মানুষের মাঝে রাজনৈতিক মত ও আদর্শ থাকবে। কোন দলের লেজুরভিত্তি না করে স্ব স্ব অবস্থান থেকে দেশ গড়ার কাজে নিজেদের নিয়োজিত করতে পেশাজীবীদের প্রতি তিনি আহ্বান জানান। নিজের জীবনের কিছু তিক্ত অভিজ্ঞতার কথাও তিনি লায়ন সদস্যদের সাথে শেয়ার করেন। তিনি বলেন, নিজেকে বিকিয়ে দিইনি বলেই আমি আমি। নিজেকে বিকিয়ে দিলেই হয়তো অনেক কিছু হতে পারতাম। কিন্তু আমি হতাম না।
জীবনে বহু পদক বা পুরস্কার পাওয়ার কথা উল্লেক করে তিনি বলেন, এরমধ্যে একুশে পদক এবং একটি শান্তি পদক ছাড়া সবই শিক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দেয়া। বিশ্বের সর্ববৃহৎ সেবা সংগঠন থেকে সম্মানিত হয়ে নিজেকে ধন্য মনে করেন বলেও উল্লেখ করেন একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রখ্যাত এই শিক্ষাবিদ। তিনি লায়ন্স ক্লাবগুলোর সেবামুলক কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, আপনাদের বহু আকর্ষণীয় কাজ রয়েছে। বিশেষ করে লায়ন্স চক্ষু হাসপাতাল বহু অন্ধ মানুষের চোখের আলো ফুটিয়েছে। আপনাদের ওয়ান ক্লাব ওয়ান চাইল্ড একটি অসাধারণ উদ্যোগ। আপনাদের প্রতিটি কাজেই সমাজের ধনী এবং অতি ধনী মানুষদের এগিয়ে আসা উচিত। লায়ন্স ক্লাবের চক্ষু রিসার্চ ইনস্টিটিউট গঠনের প্রক্রিয়ার সাথে সমাজের সব বিত্তবান মানুষের হাত লাগানো উচিত বলেও খ্যাতনামা এই শিক্ষাবিদ মন্তব্য করেন।
অনুষ্ঠানে লায়ন গভর্নর মোহাম্মদ নাসিরউদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমরা সমাজের সব সমস্যার সমাধান করতে পারবো না। তবে সমাজের সমস্যাগুলোকে চিহ্নিত করতে পারবো। আমরা সেই কাজটি করছি। ভবিষ্যতেও লায়ন সদস্যরা এই ধারা অব্যাহত রাখবে। তিনি বলেন, আমরা আমাদের অবস্থান থেকে সমাজের কম সৌভাগ্যবান মানুষদের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করছি। আমরা বিভিন্নমুখী কাজ করি। এই কাজ করার মাঝেই লায়ন সদস্যদের আনন্দ।
প্রথম ভাইস গভর্নর লায়ন কামরুন মালেক বলেন, সমাজের সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের ভাগ্যোন্নয়নে লায়ন সদস্যরা কাজ করেন। এই কাজেই আমাদের আনন্দ। প্রফেসর ড. আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজুদ্দীনকে সম্মানিত করে লায়ন সদস্যরা নিজেরাই সম্মানিত হয়েছেন বলেও লায়ন কামরুন মালেক মন্তব্য করেন। তিনি প্রফেসর মোহাম্মদ আলমগীর সিরাজুদ্দীনের সহধর্মীনি ড. আসমা সিরাজকেও অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, ড. আসমা সিরাজ পাশে না থাকলে আলমগীর সিরাজ কোনদিনই প্রফেসর ড. আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজুদ্দীন হয়ে উঠতে পারতেন না। লায়ন সদস্যরা নারীদের মূল্যায়ন এবং সমাজের অবহেলিত নারীদের ভাগ্যোন্নয়নেও কাজ করেন বলে উল্লেখ করেন লায়ন কামরুন মালেক।
অনুষ্ঠানে সাবেক গভর্নরদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখতে গিয়ে দৈনিক আজাদী সম্পাদক লায়ন এম এ মালেক বলেন, যেখানেই প্রয়োজন, সেখানেই লায়ন- এটিই আমাদের বিশ্বাস। আর আমরা কোনদিনই ‘আমি সেবা করি’ বলি না, বলি ‘আমরা সেবা করি’। আর এই আমরাই পৃথিবীর আনাচে কানাচে মানুষের প্রয়োজনে মানুষের পাশে দাঁড়াই। কবি কাহলিল জিবরানকে উদ্বৃতি দিয়ে লায়ন এম এ মালেক বলেন, পৃথিবী থেকে একদিন আমরা সবাই চলে যাবো। তবে আমাদের সেবার এই পদচিহ্ন সমুদ্রের বালুকাবেলার মতো থেকে যাবে। পঞ্চান্ন বছর ধরে লায়নিজমে জড়িত থাকার কথা উল্লেখ করে এম এ মালেক বলেন, কিছুই হয়তো করতে পারিনি। তবে করার জন্য নিরন্তর চেষ্টা করেছি। গত পঞ্চান্ন বছর ধরে লায়নিজমে জড়িত থাকায় লায়ন এম এ মালেককে অনুষ্ঠানে বিশেষ পিন প্রদান করেন লায়ন গভর্নর মোহাম্মদ নাসিরউদ্দিন চৌধুরী।
দ্বিতীয় কেবিনেট মিটিং : এর আগে সন্ধ্যায় লায়ন্স জেলা ৩১৫-বি৪ বাংলাদেশ এর দ্বিতীয় কেবিনেট মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। জেলা গভর্নর লায়ন নাসির উদ্দীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং কেবিনেট সেক্রেটারি লায়ন জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বিপুল সংখ্যক কেবিনেট সদস্য ও অবজারভার অংশ নেন। কেবিনেট মিটিং-এ সদ্য প্রাক্তন জেলা গভর্নর লায়ন মনজুর আলাম মঞ্জু, প্রথম ভাইস জেলা গভর্নর লায়ন কামরুন মালেক, প্রাক্তন জেলা গভর্নরদের মধ্যে লায়ন শফিউর রহমান, লায়ন এম এ মালেক, লায়ন মোহাম্মদ সামসুল হক, লায়ন নাজমুল হক চৌধুরী, লায়ন আলহাজ রফিক আহমেদ, লায়ন এস এম ইসহাক, লায়ন প্রফেসর এমডি এম কামাল উদ্দিন চৌধুরী, লায়ন এস এম শামসুদ্দিন, লায়ন সিরাজুল হক আনছারী, লায়ন মোস্তাক হোসাইন, লায়ন শাহ আলম বাবুল, কেবিনেট ট্রেজারার লায়ন মোসলেহউদ্দিন চৌধুরী, জয়েন্ট সেক্রেটারি লায়ন আরশাদুল আলম আরজুসহ কেবিনেটের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে মাসব্যাপী পরিচালিত অক্টোবর সেবা কর্মকাণ্ডে স্বীকৃতিস্বরূপ ২৪টি লায়ন্স ক্লাবকে অক্টোবর সার্ভিস অ্যাওয়ার্ড সম্মাননা প্রদান করা হয়।

x