আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে বেড়েছে নারীর ক্ষমতায়ন

শুক্রবার , ৯ নভেম্বর, ২০১৮ at ৯:১৮ পূর্বাহ্ণ
29

দেশের ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষক এবং সুবিধাবঞ্চিত মানুষের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সংখ্যা ৮ কোটি ১৩ লাখ। চলতি বছরের জুন পর্যন্ত ব্যাংক খাতে মোট অ্যাকাউন্টের সংখ্যা ৯ কোটি ২ লাখ। অর্থাৎ অ্যাকাউন্টের ৯০ দশমিক ১২ শতাংশই ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক মানুষের। ক্ষুদ্র অ্যাকাউন্টে জমা আছে আমানতের মাত্র ৬ শতাংশ এবং বৃহৎ অ্যাকাউন্টে জমা আছে আমানতের ৯৪ শতাংশ টাকা।
বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক অন্তর্ভুক্তিমূলক নানাবিধ কার্যক্রমের ফলে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট হোল্ডারের সংখ্যার সঙ্গে বেড়েছে গ্রামীণ এলাকায় ক্ষুদ্র সঞ্চয়। ক্ষুদ্র সঞ্চয় বৃদ্ধির প্রভাবে নিশ্চিত হচ্ছে নারীর ক্ষমতায়ন ও দেশের আর্থিক খাতের স্থিতিশীলতা।
বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইনক্লুশন ডিপার্টমেন্টের এক গবেষণায় উঠে এসেছে এসব তথ্য। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক মো. আনোয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে উপ-পরিচালক বীরেন্দ্র চন্দ্র দাস ও বিধান চন্দ্র সাহা গবেষণা কার্যক্রমটি পরিচালনা করেছেন। খবর বাংলানিউজের।
গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আনুষ্ঠানিক ব্যাংকিং সেবা বঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে ব্যাংকিং সেবার আওতায় আনার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে দেশে ব্যাংক অ্যাকাউন্টধারীর সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।
২০০৯ সাল থেকে চলতি বছরের জুন মাস পর্যন্ত কৃষকসহ সুবিধা বঞ্চিত ১ কোটি ৭৯ লাখ মানুষের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। একই সময় পর্যন্ত ব্যাংক খাতে মোট ৯ কোটি ২ লাখ অ্যাকাউন্টের মধ্যে ক্ষুদ্র আমানতকারীদের অ্যাকাউন্টের সংখ্যা ৮ কোটি ১৩ লাখ; যা মোট হিসাবধারীর মধ্যে ৯০ দশমিক ১২ শতাংশ। গত ১০ বছরে ক্ষুদ্র আমানত অ্যাকাউন্টের পরিমাণ বেড়েছে ২৩৭ শতাংশ, একই সময়ে বৃহৎ অ্যাকাউন্টের সংখ্যা বেড়েছে ৩০৪ শতাংশ। ক্ষুদ্র আমানত অ্যাকাউন্টে জমা আছে মোট আমানতের মাত্র ৬ শতাংশ টাকা। কিন্তু বৃহৎ আমানত অ্যাকাউন্টে জমা রয়েছে ৯৪ শতাংশ।
প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ২০০৯ সালে ক্ষুদ্র আমানতি হিসাবে জমা ছিল মোট আমানতের ১৫ শতাংশ টাকা। অর্থাৎ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ক্ষুদ্র আমানত অ্যাকাউন্ট এবং স্থিতি বাড়লেও বৃহৎ আমানতের স্থিতির প্রবৃদ্ধি ছিল অনেক বেশি। এটি ধনী-গরিবের বৈষম্য বৃদ্ধির একটি ইঙ্গিত বহন করে। আমানত হিসাব বৃদ্ধি এবং বৃহৎ আমানত বৃদ্ধির বিষয়টি বাংলাদেশের আর্থিক অন্তর্ভুক্তিমূলক উদ্যোগের সুফল এবং তা অর্থনৈতিক উন্নয়নের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।
অপরদিকে, ক্ষুদ্র আমানত হিসাব বৃদ্ধির ধারাকে আর্থিক অন্তর্ভুক্তির সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায় একে অপরের সঙ্গে সরাসরি সম্পর্কযুক্ত। অর্থাৎ ২০১১ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত দেখা যায় ক্ষুদ্র আমানত হিসাব বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে আর্থিক অন্তর্ভুক্তির মাত্রাও বৃদ্ধি পেয়েছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০০৯ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত সময়ে বৃহৎ আমানত হিসাবের সংখ্যা কমলে-বাড়লেও ক্ষুদ্র আমানত হিসাবসমূহের সংখ্যার তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি। ফলে ক্ষুদ্র আমানতে কোনো প্রভাব নেই বললেই চলে। অর্থাৎ বৃহৎ আমানতের তুলনায় ক্ষুদ্র আমানত অধিক স্থিতিশীল এবং আর্থিক অন্তর্ভুক্তির প্রধান হাতিয়ার।
আর্থিক খাতে নারীর অংশগ্রহণ এবং অংশীদারিত্ব বৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করার ফলে আর্থিক সেবায় নারীর প্রবেশাধিকার বাড়ছে এবং একইসঙ্গে বাড়ছে অর্থনৈতিক সম্পদে নারীর অংশীদারিত্ব এবং ঘটছে নারীর ক্ষমতায়ন। আর্থিক সেবায় ডিজিটাল পদ্ধতির প্রবর্তনের ফলে বিশেষত মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মাধ্যমে এ নারীরা অধিক হারে প্রাতিষ্ঠানিক আর্থিক সেবা গ্রহণের সুযোগ পাচ্ছে। এর ফলে গ্রামীণ অর্থনীতিতে নারীর ক্ষমতায়ন ঘটছে লক্ষ্যণীয়ভাবে।
অপরদিকে, বাংলাদেশ ব্যাংক নারী উদ্যোক্তা সৃষ্টির জন্য সহায়ক পরিস্থিতি সৃষ্টির লক্ষ্যে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে নির্দেশনা পরামর্শ দেওয়া ছাড়াও কতিপয় প্রণোদনা প্যাকেজ এবং পুনঃঅর্থায়ন স্কিম চালু করেছে। এর ফলে অর্থনীতি এবং সমাজের মূলধারায় নারীর অন্তর্ভুক্তি, সঞ্চয়ের পরিমাণ বৃদ্ধি এবং নারীর ক্ষমতায়ন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০১২ সাল থেকে ২০১৭ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বাণিজ্যিক ব্যাংকের ক্রমবর্ধমান অর্থায়নের ধারা এ কার্যক্রমকে আরও বেগবান করেছে।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে বর্তমান সরকারের সবগুলো উদ্যোগই সফল হয়েছে। ব্যাংক সেবার আওতায় আনতে জনগণকে ১০ টাকায় অ্যাকাউন্ট খোলার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এসব কারণে ক্ষুদ্র সঞ্চয় ও নারীর ক্ষমতায়ন বেড়েছে।

x