আমার জন্মভূমি বাংলাদেশ : কৈশোরে ফিরে যাওয়ার দরজা

মিজান মনির

শুক্রবার , ২৩ মার্চ, ২০১৮ at ৪:৫৭ পূর্বাহ্ণ
82

‘… তবুও কিশোরকাল দীপ জ্বেলে যায়/ স্বর্ণালী মধুময় অতীত পানে
প্রজাপতি মন যেন ফুলের ছোঁয়ায়/ সুবাসিত হয়ে আজ আমাকে টানে।’
কিংবা ‘… আমরা এখন স্বাধীন/ নয় তো কারো অধীন /যায় যদি যাক প্রাণ/কণ্ঠে নেবো শেখ মুজিবের নাম। ’
এমন সব ছন্দতালের ছোঁয়ায় দৃশ্যকল্প যদি পড়তে চান, হারিয়ে যেতে চান শৈশব-কৈশোরের দুরন্তপনায় উপমা-অলঙ্কারে, তবে সংগ্রহ করুন শিশুসাহিত্যিক রমজান আলী মামুনের ‘আমার জন্মভূমি বাংলাদেশ’ কিশোরকবিতা গ্রন্থটি। ‘আমার জন্মভূমি বাংলাদেশ’ একটি অসাধারণ কিশোর কবিতাগ্রন্থ- নামটির মধ্যে স্বদেশপ্রেমের প্রতি আছে এক নিখাদ মায়াবি টান। এ টান শুধু নামেই নয়, ছড়িয়ে আছে গ্রন্থের প্রতিটি ছড়া-কবিতায়। প্রত্যেক লেখায় শব্দের ঝনঝনানি, তাল-লয়, প্রতিটি বাক্যের ভাঁজে ভাঁজে রয়েছে অশেষ প্রেম-ভালোবাসা। পড়ামাত্রই সব বয়সী পাঠকের মনে এক অনাবিল প্রশান্তি ছড়াবে। প্রশান্তির সুমধুর সুরের ছন্দে ছন্দে মায়াবী পরশ মাখানো আবেগের ছোঁয়া আছে প্রতিটি ছড়া-কবিতায়। এসব কবিতার বিষয়: মা-মাটি-দেশ, শৈশব-কৈশোরের নানা স্মৃতি, সোনালি কাবিনের কবি। ঋতুবৈচিত্র্য আর জাতীয় কবি নজরুল, ফুল-পাখি-জোছনা, খাল-নদী-সমুদ্র। শুধু বিষয় নয় বিষয়ের গভীর থেকে গভীরের রত্ন তুলে এনেছেন শব্দের সুনিপুণ গাঁথুনি দিয়ে আপন শিল্পগুণে। তাঁকে আমরা সাহিত্যের একজন নিষ্ঠাবান কর্মী হিসেবে পেয়ে থাকি, আড্ডা কিংবা সাহিত্যের যে কোনো অনুষ্ঠানে। তিনি একাধারে কবি, গল্পকার ও শিশুসাহিত্যিক বা ছড়াসাধক হিসেবেই বেশ পরিচিত। একুশে গ্রন্থমেলা’ ১৮ তে ‘আমার জন্মভূমি বাংলাদেশ’ নামের একটি কিশোর কবিতার গ্রন্থ নিয়ে পাঠকের কাছে হাজির হয়েছেন রমজান আলী মামুন। কিশোরমনের কল্পনায় ভেসেই রচনা করেছেন ‘আমার জন্মভূমি বাংলাদেশ’। বাংলা সাহিত্যের অন্যান্য শাখার মতো কিশোরকবিতায়ও তিনি যে সফল তার প্রমাণ এই গ্রন্থটি। গ্রন্থটি প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রামের অক্ষরবৃত্ত প্রকাশন। চমৎকার প্রচ্ছদ ও প্রতিটি পৃষ্টাজুড়ে ছবি অলঙ্করণ করেছেন শিল্পী ফারজানা পায়েল। লেখকের অন্যগ্রন্থগুলোর চেয়ে এই গ্রন্থটি স্বাতন্ত্র্যের স্বাক্ষর বহন করে। প্রতিটি লেখার গভীরে খুঁজে পাওয়া যায় একান্ত নিজের জানা-অজানা সব অনুভূতি। যেমনণ্ড
আমার জন্মভূমি বাংলাদেশের সবুজে পাহাড় ঘেরা জেলা চাটিগাম/ এখানে কর্ণফুলী কলকলিয়ে ঢেউ তুলে বয়ে যায় শুধু অবিরাম। (আমার জন্মভূমি)
রমজান আলী মামুন আপন গ্রামকে দেখেছেন খুব কাছ থেকে খুব গভীরভাবে। আরো দেখেছেন সবুজ প্রকৃতি-শান্ত-নরম মনের নানা মানুষ। অনুভব করেছেন শৈশব-কৈশোরিক হাসি-কান্না আর আনন্দ-বেদনার শত অনুভুতি। আর তাই কিশোর মনে লুকিয়ে থাকা ভাবনাগুলো ডানা মেলেছে গ্রন্থের কবিতাগুলোতে। এ ভাবনাগুলো রমজান আলী মামুন ফুটিয়ে তুলেছেন দরদি মনে সাবলিল ভাষায় কলমের নিপুণ মায়াবি ছোঁয়ায়। বর্ষা নিয়ে অনেক ছড়া, কবিতা দেখা যায়। তবে এই গ্রন্থে বর্ষা নিয়ে যে কিশোর কবিতাটি আছে তা সম্পূর্ণ আলাদা। শব্দ-ছন্দ আর তাল-লয় যেন অলৌকিক পথে এসে একাকার হয়ে মিশে গেছে। যারা কবিতা এক নিঃশ্বাসে পড়তে ভালো ভাসেন তাদের কাছে ‘আমার জন্মভূমি বাংলাদেশ’ গ্রন্থটি খুবই ভালো লাগবে। একটি কবিতারছত্র ভালো না লেগে উপায় নেই। যেমনণ্ড বৃষ্টি পড়ে টাপুর টুপুর একটানা এক সুরে / বদ্ধ ঘরে তাই পাপিয়ার মন ছুটে যায় দূরে। (উড়ু উড়ু মন)
ফুলকে কে না ভালোবাসে। ফুল পবিত্র। শিশুরাও ফুলের মতো নিষ্পাপ। লেখক এখানে শিশুকে ফুলের সঙ্গে কি দারুণভাবে তুলনা করেছেন। আজকের প্রতিটি শিশুও আগামীতে আলোয় আলোয় ভরে দেবে সুন্দর এই পৃথিবী। তারই বর্ণনা দিয়েছেন এইভাবেণ্ড
আজকে যারা ছোট্ট শিশু কালকে হবে বড়ো / বাংলাদেশের ধরতে যে হাল জীবনটাকে গড়ো। (ফুলের মতো)
এসব ছড়া-কবিতা যেন রমজান আলী মামুনের নিভৃত একক সাধনারই ফল। তিনি কী চমৎকার ছন্দে বেঁধে দিয়েছেন প্রতিটি কবিতার ঘর। ঘরে ঢুকলেই মন আর বের হতে চাই না। কবিতার ভেতরের মর্মবাণী পৌঁছে যায় অন্তরের গহীনে। যেমনণ্ড খেলার মাঠে যেতে মানা-নদীর কাছেও না / কোথায় আমার স্বাধীনতার অবাধ ঠিকানা। আকাশ যখন উঠবে ফুটে তারার বাগান হয়ে / জানলা গলে দেখতে থাকি কষ্ট সয়ে সয়ে। (প্রতিবন্ধী)
‘প্রতিবন্ধী’ কবিতাটিতে প্রতিটি শারীরিক মানসিক বিকারগ্রস্ত শিশু-কিশোরদের কথা তুলে ধরা হয়েছে। তাদের না বলা কথা ফুটিয়ে তুলেছেন রমজান আলী মামুন। সবাই খেলতে যাবে আমরা কেন পারি না! বইটিতে মোট বাইশটি ছড়া-কিশোর কবিতা রয়েছে। বইটি শুধু ছড়া-কবিতার পাঠককেই আন্দোলিত করবে তা নয়, ছড়ালেখকদেরও নড়েচড়ে বসতে তাড়িত করবে নিঃসন্দেহে। আর যে জিনিসটা পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে সেটা হলো প্রতিটি লেখার আঙ্গিকগত বৈচিত্র্য এবং স্বাতন্ত্র্য। এ ক্ষেত্রে তিনি ইর্ষণীয় সাফল্যের অধিকারী বলে চিহ্নিত হবেন। আমার বিশ্বাস বাংলা শিশুকিশোর সাহিত্যে রমজান আলী মামুন’র ‘আমার জন্মভূমি বাংলাদেশ’ একটি অন্যতম কিশোরকবিতাগ্রন্থ হিসেবে বিবেচিত হবে।

x