আবারো স্থলমাইন পুঁতেছে মিয়ানমার!

নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্ত

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি

বৃহস্পতিবার , ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ৫:৩৮ পূর্বাহ্ণ
464

বাংলাদেশ সীমান্তের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তের জিরো লাইনে আবারো স্থলমাইন পুঁতেছে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষীরা! গত ১ সপ্তাহ ধরে তারা এ মাইন পুঁতে রাখায় সীমান্তে দেখা দিয়েছে আতংক। বিশেষ করে গত ৩ সেপ্টেম্বর স্থল মাইন বিস্ফোরণে শাহজাহান নামের এক রোহিঙ্গা যুবকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ উদ্ধারের পর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সীমান্তে বসবাসরত কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দা। সে উখিয়া কুতুপালং জি নাম্বার ব্লক এর বাসিন্দা রুস্তম আলীর ছেলে।
বিশ্বস্ত একাধিক সূত্র জানায়, মিয়ানমার সীমান্ত রক্ষার দায়িত্বে থাকা সেনাবাহিনী ও বিজিপি সদস্যরা রোহিঙ্গা পারাপারে বাধা দিতে এ স্থলমাইন হয়তো পুঁতেছে। আর কাঁটাতার ঘেঁষে টহল দিতেও দেখেছে তারা। এ ছাড়া মাটিতে গর্ত করে কিছু একটা রাখছে এমন দৃশ্যও দেখেছে তারা। তারা আরো বলেন, এখনো তা কি বোঝা যাচ্ছে না। তবে ধারণা করা হচ্ছে, এগুলো স্থলমাইন।
এদিকে কুতুপালং লম্বা শিয়া এলাকার বাসিন্দা আবদু রহিম ও মধুরছড়া ক্যাম্পের শফিক আহমদ জানান, মিয়ানমারে থাকা রোহিঙ্গারা যেন বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে না পারে এ জন্য স্থলমাইন বসিয়েছে তারা। নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ জানান, সীমান্তে অনেক হতাহতের ঘটনা ঘটলেও প্রকৃত তথ্য তার কাছে নেই। তবে গত ৬ দিন পূর্বে তুমরু সীমান্ত এলাকা থেকে মাইন বিস্ফোরণে নিহত যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে বুঝতে আর বাকি নেই জিরো লাইনে মাইন বসানো হচ্ছে।
উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রাজা মিয়া জানান,সীমান্ত এখন গরম। মিয়ানমার আবারো কী যেন করছে। বিশেষ করে স্থলমাইন তাদের হাতিয়ার। বর্তমানে সীমান্তের জিরো পয়েন্টে স্থলমাইন পুঁতে মানুষ মারার কল বসানো হচ্ছে। যা অমানবিক। এছাড়া সীমান্তে মাইন বসানো বা জিরো পয়েন্টে টহল আন্তর্জাতিকভাবে নিষিদ্ধ । এসব না মেনে মিয়ানমার বেআইনি কাজ করে যাচ্ছে। ঘুমধুম পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইমন চৌধুরী বলেন, গত ৩ সেপ্টেম্বর স্থানীয় লোকজনের সংবাদের ভিত্তিতে শাহজাহান নামক এক যুবকের ক্ষত-বিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। যার শরীর থেকে দুই পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কঙবাজারের ৩৪ বিজিবির অধিনায়কক লে. কর্ণেল আলী হায়দার আহমেদ জানান, বিষয়টি নিয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে বৈঠকের পরে বিস্তারিত জানানো হবে।
উল্লেখ্য, মিয়ানমার বাহিনী ইতিপূর্বে বেশ ক’বছর পূর্বে সীমান্তজুড়ে স্থলমাইন বসিয়েছিল। যাতে অর্ধশতাধিক লোক নিহত আর শত শত নিরীহ লোক আহত হন।

x