আবদুল মতিন চৌধুরী: শিক্ষা ও গবেষণায় মননশীল ব্যক্তিত্ব

রবিবার , ২৪ জুন, ২০১৮ at ১০:৩৬ পূর্বাহ্ণ
59

বাংলাদেশে শিক্ষা ও বিজ্ঞান গবেষণায় এক অনন্য ব্যক্তিত্ব আবদুল মতিন চৌধুরী। পদার্থ বিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার নির্বাচনী কমিটির এশীয় বিভাগের সদস্য সহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নানা গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত থেকে তিনি নিজ মেধা ও যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছেন । আজ তাঁর ৩৭তম মৃত্যুবার্ষিকী।

আবদুল মতিন চৌধুরীর জন্ম ১৯২১ সালের ১লা মে লক্ষ্মীপুর জেলার নন্দনপুর গ্রামে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সাথে পদার্থ বিজ্ঞানে এম.এস.সি পাস করে তিনি সরকারি বৃত্তি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে যান এবং শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচ.ডি ডিগ্রি অর্জন করেন। তাঁর পিএইচ.ডি গবেষণার বিষয় ছিল বায়ুমন্ডল। ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয়বার তিনি পিএইচ.ডি ডিগ্রি লাভ করেন। আবদুল মতিন চৌধুরীর কর্মজীবনের সূচনা আবহাওয়া অধিদপ্তরে আবহাওয়াবিদ হিসেবে। পরবর্তীসময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগে অধ্যাপনা করেন। স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময়ে আবদুল মতিন পাকিস্তান আণবিক শক্তি কমিশনের সদস্য, পাকিস্তান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রধান বিজ্ঞানী এবং প্রেসিডেন্টের বিজ্ঞান উপদেষ্টা ছিলেন। এছাড়া নেহরু শান্তি পুরস্কার কমিটির সদস্য এবং ব্রিটেনের রয়্যাল মেটিরিয়লজিক্যাল সোসাইটির ফেলো ছিলেন তিনি। বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন আবদুল মতিন ছিলেন পাকিস্তানীদের হাতে বন্দি। স্বাধীনতার পর তিনি ঢাকায় আসেন এবং ১৯৭৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিযুক্ত হন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন অধ্যাপক আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিজ্ঞানী সত্যেন বোসের নামে একটি চেয়ার স্থাপন করে এবং আবদুল মতিনকে সম্মানসূচক ‘বোস অধ্যাপক’ পদ প্রদান করে। ১৯৮১ সালের ২৪শে জুন আবদুল মতিন চৌধুরী প্রয়াত হন।

x