আনোয়ারায় হত্যা মামলার আসামির বাড়িতে লুটপাটের অভিযোগ

আনোয়ারা প্রতিনিধি

বুধবার , ২৪ এপ্রিল, ২০১৯ at ১১:০৬ পূর্বাহ্ণ
78

আনোয়ারা উপজেলার বরুমচড়া ইউনিয়নের গাউছিয়া পাড়া এলাকায় ভূমি বিরোধের জেরে এক ব্যক্তি খুনের পর আসামির বাড়িতে লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। খুনের ঘটনায় ১৪ জনকে আসামি করে মামলা দায়েরের পর আসামিরা পালিয়ে গেলে তাদের বাড়িঘরে লুটপাটের এই ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।
গত ২২ মার্চ বরুমচড়া ইউনিয়নের গাউছিয়া পাড়ায় খুন হন আবদুল মোনাফ। এ ঘটনায় বড় ভাই আবদুল মজিদসহ ১৪ জনকে আসামি করে আনোয়ারা থানায় হত্যা মামলা দায়ের হয়। ঘটনার পর অভিযুক্ত আব্দুল লতিফকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। অভিযুক্ত অন্যরা ঘর ছেড়ে অন্যত্র পালিয়ে যায়। এ সুযোগটি কাজে লাগিয়ে প্রতিপক্ষের লোকজন বহিরাগতদের সহায়তায় স্থানীয় মাওলানা আব্দুল মুবিন, প্রবাসী নুরুল ইসলাম ও অভিযুক্ত আব্দুল লতিফের ঘরে হামলা, ভাঙচুর ও মালামাল লুটপাট চালায় বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।
গ্রেপ্তার হওয়া আদুল লতিফের স্ত্রী ফেরদৌস আক্তার সাংবাদিকদের অভিযোগ করেন, আব্দুল মজিদ ও আব্দুল মোনাফ দুই ভাইয়ের পরিবারের মধ্যে জায়গা জমি নিয়ে বছরের পর বছর মামলা হামলা চলে আসছিল। এর জের ধরে দুই পরিবারের মারামারির ঘটনায় আব্দুল মোনাফ প্রাণ হারায়। তাদের সাথে আমাদের পরিবারের কোন ধরনের সম্পর্ক না থাকার পরও আমার স্বামীকে মিথ্যা অভিযোগে আসামি করে পুলিশে ধরিয়ে দেয়। এরপর বহিরাগত সন্ত্রাসী এনে হামলা চালিয়ে ঘরে রক্ষিত ধান চাল আসবাবপত্র স্বর্ণালংকারসহ তিন পরিবারের বিশ লক্ষাধিক টাকার সব মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। বিষয়টি ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপিকে অবিহিত করলে তাঁর নির্দেশে পুলিশের সহযোগিতায় আমরা বাড়ি ঘরে ফিরে আসি। আমরা এ ঘটনার বিচার চাই। তবে আব্দুল মোনাফের পরিবার এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এ মামলায় অভিযুক্তরা মধ্যযুগীয় কায়দায় আব্দুর মোনাফকে নির্মমভাবে হত্যা করে। ঘটনার দায় এড়াতে তারা লুটপাটের মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে।
আনোয়ারা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাহাবুব মিল্কি বলেন, আব্দুল মোনাফ হত্যাকাণ্ডের পর অভিযুক্তরা বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে গেলে এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে একটি চক্র বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাঠের ঘটনা ঘটায়। খবর পেয়ে পুলিশ ক্ষতিগ্রস্থদের বাড়িঘরে ফিরিয়ে এনে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে। হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা।

x