অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান এগিয়ে যাওয়ার লড়াই দু’দলেরই

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বুধবার , ১২ জুন, ২০১৯ at ৬:১৯ পূর্বাহ্ণ
33

এক দল টপ ফেবারিট আর অন্য দল আন্ডার ডগ। একদল ধারাবাহিকতার মূর্ত প্রতীক আর অন্য দলটি আনপ্রেডিক্টেবল। এক দলের বিশ্বকাপের শুরুটা একেবারে দুর্দান্ত গতিতে আর অন্য দলের শুরুটা হতাশার কালো মেঘে ঢাকা। বলা হচ্ছিল অস্ট্রেলিয়া এবং পাকিস্তানের কথা। তবে দু দলই তাদের শেষ ম্যাচটিতে ধাক্কা খেয়েছে। পাকিস্তান যেখানে বৃষ্টির কারণে পয়েন্ট হারিয়েছে শ্রীলংকার কাছে সেখানে অস্ট্রেলিয়ার ফেবারিট তকমাটা বাধাগ্রস্ত হয়েছে আরেক ফেবারিট ভারতের সামনে। বিশ্বকাপের এবারের আসরে প্রথম হারের স্বাদ পেল অস্ট্রেলিয়া। যদিও পাকিস্তান তাদের প্রথম ম্যাচে হারের স্বাদ নিয়েছে। প্রথম শ্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে এক রকম উড়ে গেলেও পরের ম্যাচে পাকিস্তান দেখিয়েছে কেন তাদেরকে ’আনপ্রেডিক্টেবল’ দল বলা হয়। পরের ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়ায়। তৃতীয় ম্যাচে অবশ্য বৃষ্টির কারণে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাঠে নামা হয়নি সরফরাজ আহমেদের দলকে।
আজ বুধবার নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে পাকিস্তান। তবে এই ম্যাচে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ও চলমান আসরের অন্যতম ফেবারিট অস্ট্রেলিয়াকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই বলেই মনে করেন পাকিস্তানের ব্যাটিং লাইনআপের অন্যতম ভরসা ও অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ। যদিও গত ১১ দেখায় মাত্র একটিতে জয় পেয়েছে পাকিস্তান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে। মোহাম্মদ হাফিজের মতে বিশ্বকাপের দশটি দলের সবাইকেই হারানো সম্ভব। যদি ইংল্যান্ডের দিকে তাকান, তারা খুব ভালো ক্রিকেট খেলছিলো এবং সবাই মনে করেছিলো তাদের হারানো কঠিন হবে। কিন্তু আমরা তাদের হারিয়েছি। তাই এখানে সবাইকেই হারানো সম্ভব। আমাদের পরের প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়াও খুব ভালো ক্রিকেট খেলছে। তবে তাদেরকেও হারানো সম্ভব। তারাও যে হারতে পারে সেটা দেখা গেছে আগের ম্যাচে।
বিশ্বকাপেও অস্ট্রেলিয়ার সাথে পাকিস্তানের রেকর্ড খুব বেশি ভালো নয়। অসিদের সাথে বিশ্বকাপের সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচে চারবারই পরাজয়বরণ করে মাঠ ছেড়েছে পাকিস্তান। যার মধ্যে রয়েছে ১৯৯৯ বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচটিও। সে ম্যাচে ওয়াসিম আকরামের পাকিস্তান এক রকম উড়ে গিয়েছিল স্টিভ ওয়াহন অস্ট্রেলিয়ার কাছে। তাছাড়া চলতি বছরই বিশ্বকাপের আগে দুবাইয়ে অসিদের কাছে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে পাকিস্তান । সে দিক থেকে হিসেব করলে আজ পরিষ্কার ফেবারিট অস্ট্রেলিয়াই। কিন্তু ক্রিকেটটা যতটানা গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা তার চাইতেও অনিশ্চিত একটি দল পাকিস্তান। আনপ্রেডিক্টেবল তকমা লাগানো পাকিস্তান কখন কি করে বসে তা বলা মুশকিল। তবে অতীতের এই সব পরিসংখ্যান নিয়ে মোটেও চিন্তিত নয় দলটি। তাদের কাছে প্রতিটি দিনই নতুন একটা দিন। আর সে নতুন দিনে নতুন কিছু করতে চায় সরফরাজের দল। তাই আজকের ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে যদিও হারিয়েও দেয় পাকিস্তান তাহলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবেনা। কারন দলটি এমনই।
এদিকে শেষ ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে হারের পর জয়ের জন্য বেশ মরিয়াই হয়ে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। তাই তারা খেলবে নিজেদের সবটুকু দিয়েই। ম্যাচের আগে ইনজুরিতে আক্রান্ত হয়ে অলরাউন্ডার মার্কাস স্টয়নিস ছিটকে পড়লেও তার বদলি হিসেবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে মিচেল মার্শকে। তিনিও বেশ পরীক্ষিত একজন ক্রিকেটার। যে কিনা সুযোগ পাচ্ছিলেননা দলে। এবার যেহেতু সুযোগ মিলছে কাজেই সেটাকে পুরোপুরি কাজে লাগাতে চাইবেন এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। সব মিলিয়ে নিজেদের ফিরে পেতে দলকে সমৃদ্ধ করেই পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামবে অসিরা। আগের ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে যেসব ভুল করেছে সে সব শুধরে পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামতে চায় অস্ট্রেলিয়া। আর এই ম্যাচে যে কেউই কাউকে ছাড় দেবে না, তা বোধহয় ক্রিকেট ভক্তদের নতুন করে বলার নেই। আজ বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে তিনটায় টনটনে শুরু হবে ম্যাচটি।

x