অভ্যুদয় সংগীত অংগনের প্রতিযোগিতা ও সংগীতানুষ্ঠান

সনেট দেব

বৃহস্পতিবার , ২২ আগস্ট, ২০১৯ at ১০:৪৫ পূর্বাহ্ণ
18

অজিত রায় স্মৃতিপদক ২০১৯ পেলো ঋতু দত্ত, পুজা সেন, নবনীতা দাস এবং স্মরাজ সাহা। গত ১৫ জুন সকাল ১০ টায় নগরীর জেলা শিল্পকলা একাডেমীর গ্যালারী মিলনায়তনে অভ্যুদয় সংগীত অংগনের আয়োজনে এই স্মৃতিপদক প্রদান করা হয়। ১৫ বছরের ঊর্ধ্বের প্রায় ২৫ জন প্রতিযোগী এতে অংশগ্রহণ করেন। প্রতিযোগীতায় বিচারকের দায়িত্বে ছিলেন দেশের রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী, জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত সম্মিলন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও ছায়ানটের রবীন্দ্র সংগীত প্রশিক্ষক বুলবুল ইসলাম। আরো উপস্থিত ছিলেন জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত সম্মিলন পরিষদের সম্পাদক মন্ডলির সদস্য ও ছায়ানটের রবীন্দ্র সংগীত প্রশিক্ষক শিল্পী এ. টি. এম. জাহাঙ্গীর এবং রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী আইরিন সাহা।
প্রতিযোগিতায় একটি ‘অনন্য’ মান এবং দুটি ‘উত্তম’ মান নির্বাচিত হবে বিচারকদের বিচারের মানদন্ডে। নির্বাচিতদের অজিত রায় জন্মজয়ন্তীতে অভ্যুয়দয়ের নিয়মিত অনুষ্ঠানে প্রদান করা হবে অজিত রায় স্মৃতি পদক, আর্থিক সম্মাাননা এবং অনুষ্ঠানে গান গাওয়ার সুযোগ। এই পদক অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে। অজিত রায় স্মরণানুষ্ঠানে। এই প্রতিযোগিতায় বিচারকমন্ডলীগণ অনন্য মান দেবার মতো কাউকে না পাওয়ায় ৪ জন প্রতিযোগীকে উত্তমমান প্রদান করেন। উত্তম মান পেয়েছে ঋতু দত্ত, পুজা সেন, নবনীতা দাস এবং স্মরাজ সাহা।
অনির্বাণ ভট্টাচার্যের অনুষ্ঠানে সঞ্চালনায় শুরুতেই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের তিনটি সমবেত কণ্ঠে গান পরিবেশন করেন অভ্যুদয় সংগীত অংগনের শিল্পীরা। এরা প্রথমে ‘অমৃতের সাগরে আমি যাব যাব রে, তৃষ্ণা জ্বলিছে মোর প্রাণে’ দিয়ে শুরু করেন। তারপর ‘তব প্রেম সুধারসে মেতেছি, ডুবেছে মন ডুবেছে’ ও ‘মহারাজ, একি সাজে এলে হৃদয়পুরমাঝে! চরণতলে কোটি শশী সূর্য মরে লাজে’ গান দুইটি গেয়ে শুনান। এতে অংশগ্রহণ করেন হৃদিতা চক্রবর্তী, লিরা গিলর্বাড, শিবিকা পাল, পূজা ধর, তৃষা দাশ, চন্দ্রিমা ভৌমিক রাত্রী, অনিন্দিতা দে, ঐন্দ্রিলা কানুংগো, চৌধুরী সুচিস্মিতা সহ আরো অনেকে। তবলায় সহযোগিতা করেন সানি দে।
আয়োজনে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সুমন বসাক। সংগঠনের শিল্পীরা উত্তরীয় ও ফুল দিয়ে বরণ করে নেন আমন্ত্রিত বিচারকদের। উপস্থিত ছিলেন স্বাধীন বাংলা বেতারের অন্যতম কন্ঠ যোদ্ধা শিল্পী অজিত রায়ের মেয়ে অভ্যুদয় সংগীত অংগনের পরিচালক রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পী শ্রেয়সী রায়। বিচারকেরা প্রতিযোগিতা শেষে কথামালায় বলেন, ‘রবীন্দ্রনাথের চিন্তা ও দর্শন মানব-অনুভবের গভীর তলদেশগামী। তিনি প্রচলিত আধুনিকতা পেরিয়ে ভূমিজ আধুনিকতার সাধনা করেছেন। রূখে দাঁড়িয়েছেন আগ্রাসী জাতীয়তাবাদের ধারণা। রবীন্দ্রনাথ পাশ্চাত্য আধুনিকতার সদর্থক ধারণাকে গ্রহণ করেছেন, আবার পশ্চিমের যান্ত্রিক আধুনিকতা থেকে মুক্তি কামনা করেছেন। তার সৃষ্টির পর্বে ও পর্বান্তরে সব সময় ছিলেন সময়ের চেয়ে এগিয়ে।’

x